Maharashtra Government Formation: দেবেন্দ্র ফডনবিশ পদত্যাগ করুন, নাহলে ফের রাজনৈতিক লড়াইয়ের ইঙ্গিত নবাব মালিকের
নবাব মালিক (Photo Credit: ANI)

মুম্বই, ২৫ নভেম্বর: শনি ও রবিবার দিনভর রাজনৈতিক মেলোড্রামার পর সোমবার এনসিপির মুখপাত্র নবাব মালিক (Nawab Malik) বললেন, মুখ্যমন্ত্রী দেবেন্দ্র ফডনবিশের (Devendra Fadnavis) এইবেলা পদত্যাগ করা উচিত। নাহলে বিধানসভায় সরকারের পর্যুদস্ত হওয়ার সম্ভাবনা প্রবল। দেবেন্দ্র ফডনবিশের এটুকু বোঝা উচিত যে তার দলের সংখ্যাগরিষ্ঠতা নেই। তিনি যে ভুল করেছেন তা যত তাড়াতাড়ি উপলব্ধি করবেন ততই ভাল। তিনি পদত্যাগ না করলে আমরা বিধানসভায় ফের রাজনৈতিক লড়াইয়ের মুখে সরকারকে পড়তে হবে। আমাদের ১৬৫ জন বিধায়কের সমর্থন রয়েছে। ৫৩ জন এনসিপি বিধায়ক রয়েছেন আমাদের সঙ্গে। অজিত পাওয়ার ভুল করেছেন, তিনি নিশ্চই পদত্যাগ করবেন।

আর আগামীর পরিস্থিতি আজই ঠিক হয়ে যাবে দেশের শীর্ষ আদালতে। সুপ্রিম কোর্ট মহারাষ্ট্রে বর্তামন রাজনৈতিক অস্থিরতা নিয়ে আজ রায় দিতে চলেছে। এর কারণ হল মহারাষ্ট্রে বিজেপি শাসিত সরকারের বিরুদ্ধে শিবসেনা-এনসিপি ও কংগ্রেস সুপ্রিম কোর্টে আবেদন করেছে। এনসিপি বিশ্বাস করে, সমস্ত ঘটনা পর্যালোচনার পর একটা সুন্দর রায় দেবে সুপ্রিম কোর্ট। ইতিমধ্যে রাজ্যপালের কাছে চিঠি দিয়ে আবেদন করতে চলেছে শিবসেনা-এনসিপি-কংগ্রেস। এদিকে সুপ্রিম কোর্টে শিবসেনা, কংগ্রেস ও এনসিপির (Shiv Sena-NCP-Congress) আবেদনের শুনানি আজ। সেই উপলক্ষে দেশের শীর্ষ আদালতের রায় শুনতে রাজধানীতে পৌঁছেছেন শিবসেনা নেতা সঞ্জয় রাউত(Sanjay Raut)। তিনি এক সাংবাদিক সম্মেলনে বললেন, একটি মিডিয়া রিপোর্টে তিনি জানতে পেরেছেন রোটেশনাল মুখ্যমন্ত্রীত্বের শর্তে অজিত পাওযার সম্মতি জানিয়েছেন। রাজ্যপালের সমর্থনের আশায় আজ শিবসেনা-এনসিপি ও কংগ্রেসের নেতৃবৃন্দ আজ সোমবার একটি চিঠি নিয়ে রাজভবনে যাচ্ছেন। সিবিআই-ইডি-আয়কর বিভাগ ও পুলিশ (CBI-ED-IT-Police)মিলে অপারেশন কামাল পরিচালনা করে, যার সুবিধা মহারাষ্ট্রে রয়েছে। যদিও তাতে ফল বিশেষ হয় না। তবে দলের হাতে সংখ্যা গরিষ্ঠতা থাকলে আপনার সেই অপারেশন কামালের প্রয়োজন কি? প্রশ্ন তুলেছেন রাউত। আরও পড়ুন-Rotational CM Promised to Ajit Pawar: মহারাষ্ট্রের রাজনৈতিক প্রেক্ষাপটে নয়া মোড়, আবর্তিত মুখ্যমন্ত্রীত্বের শর্তে সম্মতি অজিত পাওয়ারের

এদিন আরও দুই বিধায়ক ফিরে এল এনসিপির (NCP) শরদ পাওয়ার (Sharad Pawar) শিবিরে। তবে আরও দুই বিধায়ক এখনও নিখোঁজ। ফিরে আসা দুই বিধায়ক হলেন দৌলত দারোদা ও অনিল পাতিল। তাঁরা দু'জনেই বাকি বিধায়কদের সঙ্গে হায়াত হোটেলে উঠেছেন। রবিবার গভীর রাতে তাঁদের নিয়ে মুম্বই ফেরেন এনসিপির ছাত্র সংগঠনের প্রধান সোনিয়া দোহন ও এনসিপির যুব সংগঠনের নেতা ধীরাজ শর্মা। জানা যাচ্ছে, নীতিন পাওয়ার নামে আরও এক বিধায়ক মুম্বই ফিরেছেন। তবে তিনি হায়াত হোটেলে উঠেছেন কি না তা জানা যায়নি। তবে এখনও নিখোঁজ নরহরি জিরওয়াল নামে এক বিধায়ক। সূত্রের খবর, তিনি দিল্লিতে রয়েছেন।