Pariksha Pe Charcha 2020: ব্যর্থতা থেকেই সাফল্য আসে...পরীক্ষা পে চর্চায় পড়ুয়াদের টিপস দিলেন দেশের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি
প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। ফাইল ছবি। (Photo Credits: Getty)

নতুন দিল্লি, ২০ জানুয়ারি: ব্যর্থতা থেকেই জীবনে সাফল্য আসে। ব্যর্থতা এলেই বুঝতে হবে, সেরাটা আসা এখনও বাকি আছে। বোর্ডের পরীক্ষার আগে এভাবেই ছাত্রছাত্রীদের টিপস দিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি (PM Narendra Modi)। সোমবার দিল্লিতে 'পরীক্ষা পে চর্চা' (Pariksha Pe Charcha 2020) অনুষ্ঠানে যোগ দিয়ে ছাত্রছাত্রীদের প্রশ্নেরও জবাবে এভাবেই আগামীকে উৎসাহিত করলেন দেশপ্রধান।

এদিন ঘড়ির কাঁটা ঠিক ১১টা ছুঁতেই 'পরীক্ষা পে চর্চা'য় বলতে শুরু করেন প্রধানমন্ত্রী। তারপরেই ছাত্রদের উদ্দেশে নমো বলেন, 'মোটিভেশন (প্রেরণা) ও ডিমোটিভেশন খুব স্বাভাবিক বিষয়। সবাইকেই এই অনুভূতির মধ্যে দিয়ে যেতে হয়। এক্ষেত্রে আমি চন্দ্রযান-২- (Chandrayaan 2) এর সময় ISRO সফর ও কঠোর পরিশ্রমরত বিজ্ঞানীদের সঙ্গে সময় কাটানোর কথা কোনওদিনও ভুলব না।' ব্যর্থতায় ভেঙে না পড়ার বার্তা দিয়ে মোদী মনে করিয়ে দেন চন্দ্রযান-২-এর কথা। বলেন, 'অনেকেই আমায় বলেছিলেন, সে দিন রাতে ইসরো না যেতে। বলেছিলেন, যদি সফল না-হয় তাহলে কী করবেন? তখন আমি বলি, সেই কারণেই আমি সেখানে যাব। বাকিটা কী হয়েছে আপনারা টিভিতে দেখেছেন।' একাগ্রতার কথা তুলে ধরতে গিয়ে তিনি মনে করিয়ে দেন প্রাক্তন ভারতীয় ক্রিকেটার অনিল কুম্বলের (Anil Kumble) কথা। তিনি বলেন, '২০০১ সালে ভারত বনাম অস্ট্রেলিয়ার টেস্টের কথা মনে আছে? ব্যর্থতার মধ্যে দিয়ে যাচ্ছিল আমাদের ক্রিকেট দল। আমাদের মুড ভালো ছিল না। তবে আমরা কি সেই মুহূর্তগুলো ভুলতে পেরেছি যেটা রাহুল দ্রাবিড় ও ভিভিএস লক্ষ্মণ করে দেখালেন? তাঁরা ম্যাচটাকে ঘুরিয়ে দিলেন। একইরকম ভাবে চোট সত্ত্বেও খেলে ম্যাচের মোড় পালটে দিয়েছেন অনিল কুম্বলে। এটা প্রেরণা ও ইতিবাচক ভাবনার শক্তি।' আরও পড়ুন: Pariksha Pe Charcha 2020: রাত পেরলে সোমবারই 'পরীক্ষা পে চর্চা'য় বসবেন নরেন্দ্র মোদি, আপনি তৈরি তো?

এদিন ষষ্ঠ শ্রেণী থেকে দ্বাদশ শ্রেণীর পড়ুয়াদের মুখোমুখি হন প্রধানমন্ত্রী। গতবছরের 'পরীক্ষা পে চর্চা' অনুষ্ঠানে পড়ুয়াদের আত্মবিশ্বাস বৃদ্ধির পথ দেখিয়েছিলেন তিনি। অভিভাবকদের (Guardian) পরামর্শ দিয়েছিলেন শুধুই বইমুখী পড়া নয়, আশেপাশের পরিস্থিতি সম্পর্কে সচেতন হতে হবে পড়ুয়াদের। কাজে লাগাতে হবে টেকনোলজিকে (Technology)। এবছরও ছাত্রছাত্রীদের মনোবল বাড়ার পরামর্শ দিতে দেশের ফার্স্ট ম্যান নজর দিলেন।