Child Porn Racket: অল্প সময়ে অনেক টাকা চাই, অনলাইনে শিশুপর্ন বিক্রি করে শ্রীঘরে যোগীর রাজ্যের ইঞ্জিনিয়র
প্রতীকী ছবি (Photo Credits: PTI)

লখনউ, ১১ জানুয়ারি: কোভিড-১৯ লকডাউনে কাজ গিয়েছে। নতুন রোজগারের আশায় চাইল্ড পর্নোগ্রাফিতে (child porn) হাত পাকিয়ে এবার শ্রীঘরে গেলেন যোগীর রাজ্যের ইঞ্জিনিয়র ও তাঁর শাগরেদ দিল্লির এক বাসিন্দা। অভিযোগ, এই দুজন ইনস্টাগ্রামের মাধ্যমে শিশু পর্নোগ্রাফি বিক্রি করে। উত্তরপ্রদেশের শোনভদ্রের বাসিন্দা অভিযুক্ত তথ্যপ্রযুক্তি কর্মীর নাম নীরজ যাদব। লকডাউনের আগে কর্মসূত্রে দিল্লিতে থাকতেন তিনি। করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে দেশজুড়ে টানা লকডাউন শুরু হলে তাঁর চাকরি চলে যায়। এরপরেই দুই বন্ধুতে মিলে দ্রুত অনেক টাকা রোজগারের জন্য অনলাইনে আপত্তিকর ভিডিও, শিশু পর্নোগ্রাফি বিক্রি করতে শুরু করেন। ইনস্টাগ্রামে শিশুপর্ন বিক্রি বাবদ টাকার লেনদেন চলত Paytm, Google Pay-সহ অন্যান্য বিভিন্ন অনলাইন মাধ্যমে।

দুই অভিযুক্ত আগে টোপ ফেলত। তারপর কোনও পার্টি যদি শিশুপর্ন কিন্তে আগ্রহ দেখাতো তাহলে প্রথমে টাকার লেনদেন হয়ে গেলে নীরজ ও তার বন্ধু সেই পার্টিকে শিশুপর্ন সরবরাহ করত। মূলত হোয়াটসঅ্যাপ, টেলিগ্রাম, ইনস্টাগ্রামের মতো সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মের মাধ্যমে এই আপত্তিকর ভিডিওর আদানপ্রদান চলত। বলাবাহুল্য, অভিযুক্তরা অন্য কোনও জায়গা থেকে এই শিশুপর্নোগ্রাফি কিনে ক্লাউড বেসড ওয়েবসাইটে স্টোর করত। তারপর পছন্দের গ্রাহক পেলে সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাপসের মাধ্যমে তা বিক্রি করত। আরও পড়ুন- Nikhil Nusrat Marriage Hazard: রূপকথার বিয়ে ভাঙছে! জল্পনা জিইয়ে ইনস্টাগ্রামে পরস্পরকে আনফলো করলেন নিখিল-নুসরত

লকডাউন চলাকালীন মহারাষ্ট্রে বড়সড় শিশুপর্ন চক্র ধরা পড়ে। এই শিশুপর্ন চক্রের কারণেই দেশে শিশু ধর্ষণ, শিশুদের যৌন হেনস্তা-সহ নারকীয় কুকর্মের সংখ্যাও হু হু করে বেড়ে গিয়েছে।