Imran Khan May Be Arrested: গ্রেফতার হতে চলেছেন পাকিস্তানের প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান
Imran Khan (Photo Credit: IANS)

ইসলামাবাদ, ১ মে: পাকিস্তানের প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানকে (Imran Khan) গ্রেফতার করা হবে বলে জানালেন পাকিস্তানের বর্তমান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রানা সানাউল্লাহ (Pakistan Interior Minister Rana Sanaullah)। রবিবার তিনি প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন যে মদিনা (Madina) সফররত প্রধানমন্ত্রী শেহবাজ শরিফ (Prime Minister Shehbaz Sharif) এবং তাঁর প্রতিনিধি দলের বিরুদ্ধে গুন্ডামি করা এবং স্লোগান দেওয়ার মামলায় গ্রেপ্তার করা হবে ইমরান খানকে। একটি বিবৃতিতে সানাউল্লাহ বলেছেন: "তাঁরা যা করেছেন, তার জন্য মোটেও ক্ষমা করা হবে না। ইমরান খানকে অবশ্যই গ্রেফতার করা হবে।"

প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পর এই প্রথম বিদেশ সফরে সৌদি আরব সফরে গিয়েছেন শেহবাজ শরিফ। প্রথম বিদেশ সফরেই বিক্ষোভের মুখে পড়ে বিব্রত হতে হয়েছে তাঁকে। মদিনার একটি মসজিদে প্রবেশের সঙ্গে সঙ্গে সেখানে উপস্থিত কয়েকজন ব্যক্তি শরিফের নেতৃত্বাধীন দলটিকে উদ্দেশ্য করে 'চোর-চোর' স্লোগান দিতে থাকেন। একটি ভিডিওতে দেখা গিয়েছে, শেহবাজ শরিফকে ‘চোর’ বলার পাশপাশি প্রতিনিধি দলে থাকা কেন্দ্রীয় মন্ত্রী মরিয়ম আওরঙ্গজেবের উদ্দেশে অশালীন স্লোগান দিতে থাকেন তাঁরা এবং শাহজাইন বুগতিকে শারীরিকভাবে হেনস্থা করারও চেষ্টা করেন। ঘটনায় ইমরান খান-সহ দেড়শো জনের বিরুদ্ধে মামলা রুজু করা হয়েছে। আরও পড়ুন: Vladimir Putin's Cancer Surgery: ক্যান্সারের অস্ত্রাপচার হবে ভ্লাদিমির পুতিনের, প্রাক্তন গোয়েন্দা প্রধানের কাছে সাময়িক ক্ষমতা হস্তান্তর করবেন

আজ ইমরান খান সহ প্রায় দেড়শো জনের বিরুদ্ধে মামলার কথা উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন যে যারা রওজা-ই-রসুলের পবিত্রতা লঙ্ঘন করেছেন, তাঁদের বিরুদ্ধে মামলা না করার কোনও যুক্তি নেই। এই বিষয়ে কোনও নাগরিক এগিয়ে এসে ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানালে সরকার বাধা সৃষ্টি করবে না। তিনি পবিত্র মসজিদে পিএমএল-এন নেতাদের হয়রানি সংক্রান্ত ঘটনাটি পূর্বপরিকল্পিত ছিল। পরিকল্পনা অনুযায়ী, মসজিদ-ই-নববিতে গুন্ডামি করার জন্য আনিল মুসারাত এবং সাহেবজাদা জাহাঙ্গিরের নেতৃত্বে একদল লোক ব্রিটেন থেকে সৌদি আরবে পৌঁছেছিল।

ঘটনার পেছনের ষড়যন্ত্রের কথা বলতে গিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, "এই লোকটি (ইমরান খান) নতুন প্রজন্মকে বিভ্রান্ত করতে উদ্যত। শেখ রশিদের সংবাদ বৈঠকের পর আর প্রমাণের দরকার আছে কি? সৌদি সরকার এই ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে, কিছু লোককে ব্রিটেন থেকে নির্বাসিত করা হবে। কেউ ব্যক্তিগত শত্রুতা এবং রাজনীতিকে মসজিদ-ই-নববিতে নিয়ে যাওয়ার কথা ভাবতেও পারে না।"