Jammu and Kashmir, Ladakh to Become Two Separate Union Territories:  আগামিকাল ৩১ অক্টোবর, মধ্যরাত থেকেই দুটি পৃথক কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে বদলে যাচ্ছে জম্মু-কাশ্মীর ও লাদাখ
জম্মু ও কাশ্মীর (Photo Credit: PTI)

জম্মু, ৩০ অক্টোবর: রাত পোহালেই এক নতুন অধ্যায় দেখতে তৈরি হোন। ৩১ অক্টোবরেই জম্মু-কাশ্মীর দুটি পৃথক কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল হিসেবে চিহ্নিত হতে চলেছে। আগামী কাল অর্থাৎ বৃহস্পতিবার জম্মু-কাশ্মীর (Jammu and Kashmir) ও লাদাখ (Ladakh) দুটি আলাদা কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল হিসেবে পরিচিত হবে। আর সেই ঐতিহাসিক ঘটনার সাক্ষী থাকবে গোটা ভারত। গত ৫ আগস্ট সংসদে জম্মু-কাশ্মীর থেকে ৩৭০ ধারা (Article 370) ও ৩৫-এর এ ধারা তুলে বিশেষ অধিকার খর্ব করার কথা বলেছিলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। এর ঠিক চারদিন পর এই সিদ্ধান্তের উপরে সিলমোহর দেন রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ (Ram Nath Kovind)। ওই একই দিনে কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল জম্মু-কাশ্মীরের প্রথম রাজ্যপালের পদে বসবেন আইএএস কর্তা গিরিশচন্দ্র মুর্মু (Girish Chandra Murmu)। আর লাদাখের রাজ্যপাল হবেন রাধাকৃষ্ণ মাথুর (Radha Krishna Mathur)।

বর্তমানে গুজরাটের অথর্মন্ত্রকের ব্যয় সচিবের পদে রয়েছেন মুর্মু। তিনি ১৯৮৫-র গুজরাট ক্যাডারের একজন আইএএস। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি যখন গুজরাটের মুখ্যমন্ত্রী তখন তাঁর মুখ্যসচিব ছিলেন এই গিরিশচন্দ্র মুর্মু। গত ২৫ অক্টোবর জম্মু ও কাশ্মীরের বর্তামন রাজ্যপাল সত্যপাল মালিক বদলি হয়ে যান। আগামিকাল থেকে তিনি গোয়ার রাজ্যাপাল পদে আসীন হবেন। রাজভবনের তরফে একটি বিবৃতিতে জানানো হয়েছে, নতুন পদের দায়িত্বভারের জন্য যে দিনক্ষণ নির্দিষ্ট হয়েছে সেদিনই প্রত্যেক রাজ্যপাল তাঁদের দায়িত্বভার গ্রহণ করবেন। সেইভাবে মাথুর ও মুর্মু তাঁদের নতুন দায়িত্ব বুঝে নেবেন। আরও পড়ুন-BS Yediyurappa Stated On Tipu Jayanti: বিজেপি নেতার ইচ্ছে, কর্ণাটকের স্কুলের পাঠ্যবইতে থাকবে না টিপু সুলতানের ইতিহাস কীর্তি, কী বললেন ইয়েদুরাপ্পা?

গত ৫ আগস্ট মোদি সরকার জম্মু ও কাশ্মীর থেকে ৩৭০ এবং ৩৫-এর এ ধারা তুলে নেয়, উপত্যকার বিশেষ স্টেটাসও খর্ব করা হয়। একই সঙ্গে রাজ্যটিকে দুভাগে ভেঙে দুটি পৃথক কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে পরিণত করা হয়। একদিকে রয়েছে জম্মু ও কাশ্মীর। আর অন্যটি হল লাদাখ। আগামী ৩১ অক্টোবর সর্দার বল্লভভাই প্যাটেলের ১৪৪-তম জন্মজয়ন্তী। ওই দিন তেকেই পৃথক কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের মর্যাদা পেতে চলছে লাদাখ এবং জম্মু ও কাশ্মীর। গত ৫ আগস্টে উপত্যকার প্রশাসনিক ভোল বদলে যতেই সীমান্তের ওপারে অশান্তি শুরু হয়েছে। পাকিস্তান যেনতেন প্রকারেণ কাশ্মীর নিয়ে বিশ্বের দরবারে সহানুভূতি আদায়ের চেষ্টা করেছে তবে লাভের লাভ কিছু হয়নি।