Debbie Abrahams Did Not Have Valid Visa: ডেবি আব্রাহামসের বৈধ ভিসা ছিল না, ব্রিটিশ সাংসদকে দেশে ঢুকতে না দেওয়ার সাফাই ব্রিটেনের ভারতীয় দূতাবাসের
ব্রিটিশ সাংসদ ডেবি আব্রাহামস (Photo Credits: Getty Images)

নতুন দিল্লি, ১৮ ফেব্রুয়ারি: ভারতে প্রবেশের জন্য বৈধ ভিসা ছিল না। তাই লেবার পার্টির ব্রিটিশ সাংসদ ডেবি আব্রাহামসকে (Debbie Abrahams) বিমানবন্দর থেকে ফেরত পাঠানো হয়েছে। ইংল্যান্ডে অবস্থিত ভারতীয় দূতাবাসের তরফে মঙ্গলবার এক বিবৃতিতে একথা জানানো হয়েছে। সোমবার সকালে তিনি দিল্লির ইন্দিরা গান্ধী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছানোর পরে পরেই নিরাপত্তা কর্মীরা তাঁকে বিমানবন্দরের বাইরে বেরতে দেননি। তখনই তিনি জানতে পারেন, ভারতে প্রবেশের বৈধ ভিসা তাঁর নেই। যদিও তিনি জানতেন ২০২০-র অক্টোবর পর্যন্ত যে কোনও সময় তিনি ভারতে প্রবেশ করতে পারবেন। এমন ভিসা তাঁর রয়েছে। যাইহোক এরপরই তাঁকে দুবাইতে পাঠিয়ে দেওয়া হয়। বিমানবন্দর ব্রিটিশ নাগরিকদের ভিসা দেওয়ার কোনও নিয়ম না থাকায় এবারের মতো ডেবিকে হতাশ হতে হয়েছে।

টুইটবার্তায় ব্রিটেনে অবস্থিত ভারতীয় দূতাবাস একথা বললেও সূত্রের খবর, লাবর পার্টির সাংসদ কাশ্মীরের ৩৭০ ধারা বিলোপ নিয়ে মুখ খুলেছিলেন। যা নাকি ভারতের ব্যক্তিগত বিষয়। সেকারণেই নাকি তাঁর ভিসা বাতিল করা হয়েছে। ভিসা বাতিলের খবর পাওয়ার পর ডেবি বলেন, “ আমার ই–ভিসার মেয়াদ শেষ হওয়ার কথা অক্টোবর ২০২০–তে। যদিও আমাকে বিমানবন্দরে জানানো হয় ভিসা বাতিল করা হয়েছে এবং কোনও কারণ না দেখিয়েই ইমিগ্রেশনে থাকা আধিকারিক আমার পাসপোর্ট দেখার পর জোরে জোরে মাথা নাড়তে থাকেন। তারপর তিনি বলেন যে আমার ভিসা বাতিল হয়েছে। এরপরই আমার থেক পাসপোর্টটি নিয়ে মিনিট দশেকের জন্য অদৃশ্য হয়ে যান।” আরও পড়ুন-Coronavirus Shield Ready For Pre-Clinical Tests: পুনের পরীক্ষাগারে তৈরি করোনা ভাইরাসের ভ্যাকসিন, এখন শুধু ট্রায়ালের অপেক্ষা

এদিকে সূত্রের খবর, এই ভিসা বাতিলের বিষয়টি নাকি আগেভাগেই ডেবি আব্রাহামসকে জানানো হয়েছিল। ভারতে প্রবেশে বাধা পেয়েই এক টুইটবার্তায় ডেবি বলেন, “আমার ভারতীয় সহযোগীর সঙ্গেই দিল্লির একটি পরিবারের সঙ্গে দেখা করতে যাচ্ছিলাম। মূলত সমাজিক সুবিচার ও মানবাধিকার ফেরানোর লক্ষ্যেই আমি রাজনীতিক হয়েছি। যেখানেই অবিচার চলবে, মানুষকে হেনস্তা করা হবে। সেখানেই প্রতিবাদের জন্য হাজির হব। এক্ষেত্রে আমার দেশের সরকারের কর্মকাণ্ডের বিরুদ্ধেই যে শুধু চ্যালেঞ্জ ছুঁড়লাম এমন ভাবার কোনও কারণ নেই। এই তালিকায় অন্যদেশও থাকতে পারে।” গত বছরের আগস্ট মাসে জম্মু–কাশ্মীর থেকে বিশেষ মর্যাদা তুলে নেওয়ার পরই ভারত সরকারের সমালোচনায় সরব হন আব্রাহামস। কাশ্মীর বাসীর বিশ্বাস ভেঙেছে কেন্দ্র, ৩৭০ ধারা তুলে নেওয়ার পর ভারতীয় দূতাবাসে চিঠিও লিখেছিলেন লেবার পার্টির সাংসদ।