Hardik Patel: ভোটের আগে কংগ্রেস ছাড়লেন গুজরাটে দায়িত্বে থাকা হার্দিক প্যাটেল
Hardik Patel (Photo Credits: PTI)

আমেদাবাদ, ১৮ মে: গুজরাটে বিধানসভা নির্বাচনের আগে বড় ধাক্কা খেল কংগ্রেস (Congress)। ২০১৭ বিধানসভায় (Gujrat Elections 2017) যাকে সঙ্গে নিয়ে ভাল ফল করেছিল কংগ্রেস, তাকেই গুজরাট প্রদেশ কংগ্রেসের সভাপতি করে বাইশের ভোটে বাজিমাত করার লক্ষ্য নিয়েছিল হাত শিবির। কিন্তু সেই হার্দিক প্যাটেল (Hardik Patel)-ই কংগ্রেস ছাড়লেন। ২০১৯ সালে কংগ্রেসে যোগ দেওয়ার পরের বছরই হার্দিককে গুজরাট প্রদেশে কংগ্রেস সভাপতির দায়িত্ব দিয়েছিলেন রাহুল গান্ধী। কিন্তু দু বছরের মধ্যেই ঠিক ভোটের আগে দল ছেড়ে হার্দিক কংগ্রেসকে পুরো জলে ফেলে দেওয়ার ব্যবস্থা করে গেলেন।

হার্দিকের সঙ্গে কংগ্রেসের বেশ কয়েকদিন ধরেই দূরত্ব তৈরি হয়েছিল। তাঁর বিরুদ্ধে গুজরাট কংগ্রেসের তরফ থেকে দিল্লিতে অনেক অভিযোগও জমা পড়ছিল। ফলে রাহুল হার্দিককে বাদ দিয়েই নিজের মত করে গুজরাটে গুটি সাজাচ্ছিলেন। সেটা বুঝতে পেরেই কংগ্রেসের সঙ্গে দূরত্ব তৈরি করছিলেন হার্দিক। রাজস্থানে কংগ্রেসের চিন্তন শিবিরে যোগ না দিয়ে হার্দিক তাঁর অসন্তোষ বুঝিয়েছিলেন। কিন্তু গান্ধী পরিবার এরপরেও হার্দিককে কাছে টানার চেষ্টা না করায় দল ছাড়লেন ২৮ বছরের পাতিদার নেতা। এবার হার্দিক বিজেপিতে যোদ দিতে চলেছেন। যে বিজেপি-র বিরুদ্ধে ব্যাপক আন্দোলন করেই হার্দিক প্যাটেলর রাজ্য রাজনীতিতে চমকপ্রদ উত্থান। আরও পড়ুন: 'অযোধ্যার পর কাশী, মথুরা দখলে নেবে হিন্দুরা', মন্তব্য কর্ণাটকের বিজেপি নেতা ইশ্বরআপ্পার

২০১৭ গুজরাট ভোটের আগে পাতিদার সম্প্রদায়ের দাবিদাবা নিয়ে বড় আন্দোলন করে বিজেপি সরকারকে একাই পুরো চাপে ফেলে দিয়েছিলেন হার্দিক। যুব নেতা হার্দিক দলের লোক না হলেও রাহুল গান্ধী তাঁকে গুরুত্ব দিয়ে ২০১৭ গুজরাট বিধানসভা নির্বাচনে ঝাঁপিয়েছিলেন। হার্দিককে সঙ্গে নিয়ে লড়ার কিছুটা সুফল পেয়েছিল কংগ্রেস। বিজেপি-কে সরকার থেকে সরাতে না পারালেও মোদী রাজ্যে শক্তিশালী হয়েছিল হাত শিবির।

এবার ভোটের আগে হার্দিক দল ছাড়ায় কংগ্রেস বেশ দুর্বল হল। কারণ গত দু বছর ধরে প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি হার্দিক একাই নিজের মত করে দল চালাচ্ছিলেন। হার্দিক দল ছাড়ায় গুজরাট কংগ্রেস পুরোপুরি এলোমেলো হয়ে পড়ল। হার্দিকের সঙ্গে বেশ কয়েকজন কংগ্রেস বিধায়কও বিজেপিতে যোগ দিতে চলেছেন বলে জল্পনা।

হার্দিকের জায়গায় গুজরাট কংগ্রেসের দায়িত্বে আসতে পারেন জিগনেশ মেওয়ানি। জিগনেশও হার্দিকের মত নির্দল থেকে কংগ্রেসে এসেছেন। সপ্তাহ দুয়েক আগে কংগ্রেস বিধায়ক অশ্বিন কোতওয়াল দল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দিয়েছিলেন।