Hemant Soren: মুখ্যমন্ত্রী হেমন্ত সোরেনের বাসভবনে ইডি, লালুকে গ্রেফতারের আশঙ্কা, দুর্নীতি না শুধুই রাজনীতি? চলছে 'হানা-হানি'!
Photo Credits: TW & FB

রাঁচি, ২৯ জানুয়ারি: লালু প্রসাদ যাদবের গ্রেফতারি নিয়ে জল্পনার মাঝে, ইন্ডিয়া শিবিরের মুখ্যমন্ত্রীর বিরুদ্ধে চাপ বাড়ল ইডি। দিনভর জল্পনার পর ঝাড়খণ্ডের মুখ্যমন্ত্রী হেমন্ত সোরেনের (Hemant Soren) বাসভবনে হানা দিলেন ইডি আধিকারিকরা। দুপুরের দিকে ঝাড়খণ্ড মুক্তি মোর্চার পক্ষ থেকে জানানো হয়েছিল, বুধবার ৩১ জানুয়ারি ইডি-র দফতরে গিয়ে জমি দুর্নীতিতে অর্থ পাচার মামলায় তদন্তে সহযোগিতা করবেন মুখ্যমন্ত্রী হেমন্ত সোরেন। এরপর বিকেলে শোনা যায় হেমন্ত সোরেনের খোঁজ মিলছে না। অবশেষে সন্ধ্যায় রাঁচিতে দেখা গেল ইডি-র তদন্তকারী অফিসাররা মুখ্যমন্ত্রী বাসভবনে ঢুকছেন।

এর আগে কয়েক বার ইডি-র তলবে সাড়া না দেওয়া হেমন্তকে জানানো হয়েছিল, তিনি অফিসে না এলে, তদন্তকারী দলের সদস্যরা তার বাসভবনে গিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করবে।

দেখুন ভিডিয়ো

এদিকে, দুপুর থেকে হেমন্ত সোরেনকে ইডি জিজ্ঞাসাবাদের বিরুদ্ধে রাস্তায় নেমে বড় আন্দোলন দেখাতে শুরু করেছেন ঝাড়খণ্ড মুক্তি মোর্চার কর্মী, সমর্থকরা। অর্থের বিনিময়ে চাকরি দুর্নীতি মামলায় সোমবার ইডির (ED) দফতরে হাজির হন আরজেডি প্রধান লালু প্রসাদ যাদব (Lalu Prasad Yadav)। বিহারের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী ইডির দফতরে হাজির হতেই, শুরু হয় জিজ্ঞাসাবাদ। যা নিয়ে এবার তোপ দাগলেন লালু প্রসাদ যাদবের কন্যা মিশা ভারতী। মিশা বলেন, তাঁর বাবা একা খেতে পারেন না। তাঁকে খাইয়ে দিতে হয়। এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেটের অফিসে হাজির হওয়ার পর লালু প্রসাদ খেয়েছেন কি না, তা তাঁরা জানেন না বলে মন্তব্য করেন মিশা।

ক দিন আগে দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়ালকে ইডি তলব করলে তিনি যাননি। ইতিমধ্যেই ইডি-র হাতে গ্রেফতার হয়েছেন দিল্লির উপমুখ্যমন্ত্রী মণীশ সিসোদিয়া।