Yamuna River: লকডাউনের কারণে যমুনার জল হয়েছে স্বচ্ছ, নীল
লকডাউনের কারণে যমুনার জল হয়েছে স্বচ্ছ, নীল (Photo: Twitter)

নতুন দিল্লি, ৫ এপ্রিল: করোনাভাইরাসের (Coronavirus) সংক্রমণ রোধে দেশজুড়ে ২১ দিনের লকডাউন (lockdown) চলছে। মারণ ভাইরাসের সংক্রমণ রুখতে যেমন লকডাউন চলছে। আর সেই লকডাউন পরিবেশের ওপরে বিশাল প্রভাব ফেলছে। দূষণ কমেছে, সে বায়ু দূষণ হোক বা জল দূষণ। আর সেই কারণেই একেবারে স্বমহিমায় ফিরেছে যমুনা (Yamuna River)। সোশাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়া বেশ কিছু ছবি অন্তত সেই দাবি করছে, যাতে সিলমোহর দিয়েছে কেন্দ্রীয় জলশক্তি মন্ত্রকও (Ministry of Jal Shakti)। লকডাউন চলাকালীন দিল্লি-এনসিআর-এ শিল্প ইউনিটগুলি বন্ধ থাকার ফলে যমুনাতে বিষাক্ত বর্জ্য পড়ছে না। আর সেই কারণেই যমুনার জলের গুণগত মান উন্নত হয়েছে।

কেন্দ্রীয় জলশক্তি মন্ত্রকের টুইটার হ্যান্ডল এবং ফেসবুক অ্যাকাউন্ট থেকে তেমনই একাধিক ছবি শেয়ার করা হয়। প্রকাশ করা হয় একটি ভিডিয়োও। যমুনার যে তীরে বিদ্যুৎ কেন্দ্র রয়েছে, ঠিক তার উল্টো দিকে কালিন্দি কুঞ্জে ভিডিয়োটি তোলা হয়। তাতে দেখা যায়, মাথার উপর পরিষ্কার নীল আকাশ। আর তার নীচে কুচকুচে কালো জলের পরিবর্তে যমুনার বুকে টলটল করছে স্বচ্ছ জল। তার মধ্য দিয়ে জলের নীচের পলিও স্পষ্ট দেখা যাচ্ছে। কেন্দ্রীয় জলশক্তি মন্ত্রকের টুইটার হ্যান্ডলে একটি ভিডিয়ো পোস্ট করা হয়। তাতে যে ব্যক্তি ভিডিয়োটি তোলেন তাঁকে বলতে শোনা যায়, ‘‘এপ্রিলের দুপুরে দিল্লির যমুনা তটকে চেনাই যাচ্ছে না। একসময় যে নদীতে নর্দমার কালো জলের মতো জল বয়ে যেত, আজ সেখান দিয়ে পরিষ্কার, স্বচ্ছ জল বয়ে যাচ্ছে। যেখান থেকে আগে দুর্গন্ধ পাওয়া যেত, আজ সেখানে ঠান্ডা হাওয়া বইছে। দুর্গন্ধের নামগন্ধও নেই। আর এ সবই সম্ভব হয়েছে করোনার জন্য। মানুষ যমুনার জল নোংরা করা বন্ধ করে দিয়েছেন। আসলে যমুনা সাফাইয়ের কোনও প্রয়োজনই নেই, মানুষ নোংরা না করলেই চলবে। নোংরা না করলে পরিষ্কার করার প্রয়োজনই পড়ে না।’’ আরও পড়ুন: India Set to Light Candles: আজ একতা ও সংহতি বজায় রাখতে প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা অনুযায়ী আলো নিভিয়ে মোমবাতি জ্বালাবে ভারতবাসী

দিল্লির জল বোর্ডের ভাইস চেয়ারম্যান রাঘব চদা বলেন, "লকডাউনের কারণে অনেক শিল্প ও অফিস বন্ধ রয়েছে এবং তাই আজকাল যমুনা আরও পরিচ্ছন্ন দেখাচ্ছে। শিল্প দূষণ এবং শিল্প বর্জ্য বন্ধ হওয়ার ফলে জলের গুণমানে অবশ্যই স্পষ্টভাবে প্রভাব ফেলেছে। আমরা জলের পরীক্ষা নিরীক্ষা করব, কতটা মান বেড়েছে তা দেখার জন্য।"