Delhi Violence: আজও উত্তপ্ত দিল্লির মৌজপুর ও ব্রহ্মপুরী, বড় অশান্তির আশঙ্কায় বন্ধ ৫টি মেট্রো স্টেশন
RAF- র টহল (Photo: ANI)

নতুন দিল্লি, ২৫ ফেব্রুয়ারি: গতকালের সংঘর্ষের পর আজ থমথমে দিল্লির (Delhi) বিভিন্ন এলাকা। মঙ্গলবার সকাল থেকে ফের উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে দিল্লির মৌজপুর (Maujpur) ও ব্রহ্মপুরী (Brahampuri)এলাকা। সেখানে দুটি দল একে অপরকে লক্ষ্য করে পাথর ছোঁড়ে। পুলিশকে লক্ষ্য করেও পাথরবৃষ্টি শুরু হয়েছে। মুখ ঢেকে পাথর ছুড়তে দেখা যায় কয়েকজনকে। আগুন লাগানো হয় ২টি গাড়িতে। এলাকায় টহল দিচ্ছে RAF। অশান্তির আশঙ্কায় বন্ধ ৫টি মেট্রো স্টেশন। জাফরাবাদ, মৌজপুর-বাবারপুর, গোকুলপুরি, শিব বিহার ও জোহরি এনক্লেভ মেট্রো স্টেশনের গেট বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। জানানো হয়েছে, পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত সেখানে কোনও ট্রেন দাঁড়াবে না। ওই এলাকায় ১৪৪ ধারাও জারি হয়েছে। দিল্লির আরও ১০ জায়াগায় ১৪৪ ধারা জারি করা হয়েছে।

CAA-কে কেন্দ্র করে গতকাল উত্তপ্ত হয় দিল্লি (Delhi)। রণক্ষেত্রে পরিণত হয় উত্তর-পূর্ব দিল্লির জাফরাবাদ এলাকা (Jaffrabad)। যাঁর আঁচ দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে অন্যত্রও। জাফরাবাদ, মৌজপুর (Maujpur), গোকুলপুরী, চাঁদবাগ সহ একাধিক জায়গায় সংঘর্ষে এখনও পর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে ৫ জনের। এদের মধ্যে একজন পুলিশের কনস্টেবল এবং বাকিরা সাধারণ নাগরিক। দিল্লি পুলিশর তরফে জানানো হয়েছে, সংঘর্ষে আহতর সংখ্যা ১০৫। আরও পড়ুন: Delhi Violence: দিল্লিতে সিএএ বিরোধী ও সমর্থকদের সংঘর্ষে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৫

সোমবার জাফরাবাদ থেকে মৌজপুর পর্যন্ত সিএএ-র সমর্থনকারী ও বিরোধীদের মধ্যে সংঘর্ষ শুরু হয়ে যায়। পুলিশের সামনেই চলতে থাকে পাথরবৃষ্টি, দেওয়া হয় পেট্রল পাম্প, দমকলের গাড়ি, ঘর ও যানবাহনে আগুন। পুলিশের সামনেই বন্দুক হাতে এক যুবককে তেড়ে আসতে দেখা গেছে। আর তা ধরা পড়েছে সংবাদমাধ্যমের বিভিন্ন ফুটেজে। অভিযোগ, মোট আটবার গুলি চালিয়েছে সে। এমনকী ভাইরাল এক ভিডিয়োতে পুলিশ কর্মীকে শাসাতে দেখা যায় ওই দুষ্কৃতীকে। যদিও তৎক্ষণাৎ কোনও ব্যবস্থা নিতে পারেননি ওই পুলিশকর্মী। তবে রাতে তাকে চিহ্নিত করে আটক করেছে পুলিশ। ভজনপুরা ও মৌজপুরে CAA বিরোধী ও সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষের জেরে তুমুল সংঘর্ষ হয়। একে অপরকে লক্ষ্য করে ইটবৃষ্টি করে দু'পক্ষই। ভজনপুরাতে পুলিশের জিপ ও একটি রিকশা জ্বালানোর অভিযোগ উঠেছে।

পরিস্থিতির আঁচ করে মঙ্গলবার পূর্ব ও উত্তর-পূর্ব দিল্লির সমস্ত স্কুল বন্ধ রাখার নির্দেশ দিয়েছে দিল্লি প্রশাসন। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে দিল্লির উপ-রাজ্যপাল এবং কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের সাহায্য চেয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল। ইতিমধ্যেই জরুরি বৈঠক করছন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। বৈঠকে ছিলেন দিল্লি পুলিশ ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের শীর্ষ আধিকারিকরা। আজ নিজের বাড়িতে দিল্লি পরিস্থিতি নিয়ে বৈঠক ডেকছেন দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল। যে এলাকাগুলিতে অশান্তি হচ্ছে সেই এলাকাগুলির বিধায়ক ও প্রশাসনের আধিকারিকদের বৈঠকে থাকতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।