Citizenship Act Protests In Northeast: সাময়িক কারফিউ শিথিল গুয়াহাটি ও ডিব্রুগড়ে, সোশাল মিডিয়ায় ভুয়ো খবর থেকে সতর্ক থাকতে বলল সেনা
উত্তপ্ত অসম (Photo: Twitter)

গুয়াহাটি, ১৪ ডিসেম্বর: উত্তর-পূর্বাঞ্চলে (North-East) তাদের কার্যক্রম সম্পর্কে সোশাল মিডিয়ায় ছড়ানো মিথ্যা তথ্য ও খবর সম্পর্কে নাগরিকদের সতর্ক থাকতে বলল ভারতীয় সেনা (Indian Army)। আজ সেনার তরফে একটি অ্যাডভাইজারি (Army advisory on Northeast unrest) জারি করা হয়েছে। নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের (Citizenship Act) প্রতিবাদে উত্তপ্ত উত্তর-পূর্বের রাজ্যগুলি। চলছে বিক্ষোভ-মিছিল। পরিস্থিতি মোকাবিলায় সেখানে কাজ করছে ভারতীয় সেনা। সেনার দাবি, সন্দেহজনক ব্যক্তিরা তাদের কার্যক্রম নিয়ে মিথ্যা সংবাদ ছড়াচ্ছে। এদিকে আজ সকাল ৯টা থেকে বিকেল ৪টে পর্যন্ত কারফিউ (Curfew) শিথিল করা হয়েছে গুয়াহাটিতে (Guwahati)। ডিব্রুগড়েও (Dibrugarh) সকাল ৮টা থেকে দুপুর ২টো পর্যন্ত শিথিল থাকছে কারফিউ। শুক্রবারও সাময়িক ভাবে কারফিউ শিথিল করা হয়েছিল। তবে সেটা শুধুমাত্র দুপুর ১টা পর্যন্ত। আজ তার থেকে তিন ঘণ্টা বেশি সময়ের জন্য শিথিল করা হল কারফিউ। বৃহস্পতিবার অসমে পুলিশের গুলিতে দু'জন নিহত হয়েছেন।

নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল সংসদে পেশ হতেই অসমসহ উত্তর-পূর্বের কয়েকটি রাজ্যে বিক্ষোভ শুরু হয়। পরিস্থিতি হাতের বাইরে চলে যাওয়াতে বুধবার ডাক পড়ে সেনার। সেখানে সেনাবাহিনী ও অসম রাইফেলসের ৮টি কলাম মোতায়েন রয়েছে। প্রতিরক্ষা মন্ত্রকের জন সংযোগ আধিকারিক কর্নেল পি খোঙ্গসাই বলেন, "এখনও অবধি মোট ৮টি কলাম পাঠানো হয়েছে। যার মধ্যে বনগাঁও, মরিগাঁয় ১ কলাম করে সেনা রয়েছে। গুয়াহাটিতে রয়েছে ৪ কলাম। সোনিতপুরের রয়েছে ২ কলাম।" সেনার প্রতিটি কলামে প্রায় ৭০ জন জওয়ান আছেন। আরও পড়ুন: Citizenship Act Protests In Northeast: নাগরিকত্ব আইনের প্রতিবাদে জ্বলছে উত্তর-পূর্ব, নাগরিকদের সাবধানতা অবলম্বন করতে বলল অ্যামেরিকা, ব্রিটেন, কানাডা ও ফ্রান্স

এদিন যদিও অসমের পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে বলে দাবি করেন রাজ্য পুলিশের DG জ্যোতি মহন্ত ৷ তিনি বলেন, ‘‘আমরা শান্তি ফিরিয়ে আনছি ৷ আজ পরিস্থিতি যথেষ্ট ভালো । আমরা সতর্ক আছি ৷ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আমরা দিনরাত কাজ করছি । ’’ যদিও DG দাবি করেন, সাধারণ মানুষের উপর কোনও বিধি-নিষেধ চাপিয়ে দেওয়া হয়নি ৷ সাধারণ মানুষ প্রয়োজনীয় জিনিস কেনার জন্য বাজারে আসতেই পারেন ৷ তিনি আরও যোগ করেন পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এলে ইন্টারনেট পরিষেবাও স্বাভাবিক করা হবে ৷