ভারত-পাক সীমান্তে উড়ছে সন্দেহভাজন ড্রোন, বিএসএফ-কে সতর্ক করল পাঞ্জাব পুলিশ
প্রতীকী ছবি(Photo Credit: PTI)

নতুন দিল্লি, ১০ অক্টোবর: ফের ভারত পাক সীমান্তে সন্দেহভাজন ড্রোন (drone) উড়তে দেখল সীমান্ত রক্ষী বাহিনী। সন্দেহ করা হচ্ছে ড্রোনটি পাকিস্তান (Pakistan) থেকে সীমান্ত পেরিয়ে ভারতে ঢুকেছে। চাঞ্চল্যকর ঘটনাটি ঘটেছে পাঞ্জাবের ফিরোজপুর জেলার (Ferozepur dist) হুসেইনিওয়ালা (Hussainiwala) এলাকা লাগোয়া ভারত-পাক সীমান্তে প্রথম ড্রোনটিকে উড়তে দেখা যায়। বুধবার সন্ধ্যা সাতটা ১৫ মিনিট নাগাদ ড্রোনটি দৃশ্যমান হয়, বিএসএফ-এর (BSF) নজরে আসে। পরে স্থানীয় বাসিন্দারাও ড্রোনটিকে দেখতে পেয়ে পুলিশে খবর দেয়। সন্দেহভাজন ড্রোনটি যে পাকিস্তান থেকেই এসেছিল এবিষয়ে নিশ্চিত পাঞ্জাব পুলিশ ও সেনাবাহিনী। এনিয়ে পর পর তিনদিন সীমান্ত পেরিয়ে ভারতে হানা দিল পাক ড্রোন।

পাঞ্জাব পুলিশের তরফে জানানো হয়েছে. একের পর এক ড্রোন আসছে পাকিস্তান থেকে। সীমান্ত লাগোয়া এলাকার হালহকিকত যে পাকিস্তান এভাবে খতিয়ে দেখছে তা একপ্রকার স্পষ্ট। তবে মোবাইল ক্যামেরায় ড্রোনের ছবি তুলে রাখা হয়েছে। আরও পড়ুন-মাদক পাচারকারীদের ধরতে গিয়ে জনতার গণপিটুনিতে আক্রান্ত ৭ পুলিশ, দেখুন ভিডিও

এই প্রসঙ্গে ফিরোজপুরের ডিএসপি সুখবিন্দর সিং বলেছেন, ভারত পাকিস্তান সীমান্ত এলাকায় একটি ড্রোনকে বেশ কয়েকদিন ধরেই ঘোরাফেরা করতে দেখা যাচ্ছে। পাকিস্তান থেকেই ড্রোনটি এসে প্রতিদিন চক্কর কেটে যাচ্ছে ভারতের আকাশে। বিষয়টি ইতিমধ্যেই পুলিশের নজরে এসেছে। এজন্য বিএসএফ-এর মধ্যে চূড়ান্ত সতর্কতা জারি করা হয়েছে। ইতিমধ্যেই পুলিশের একটি দল তদন্ত শুরু করেছে। বিএসএফ-কে আলাদা করে বিষয়টি জানানো হয়েছে। বুধবার আরও একটি ড্রোনকে সীমান্ত লাগোয়া দুটি গ্রামে উড়তে দেখা গিয়েছে। জম্মু ও কাশ্মীর থেকে বিশেষ অধিকার খর্ব হওয়ার পর থেকেই যেনতেন প্রকারেণ ঝামেলা বাধাতে তৈরি হয়ে আছে পাকিস্তান। দ্বিতীয় পুলওয়ামা হামলার হুমকি দিয়েছেন পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। বিভিন্নভাবে সীমান্ত পেরিয়ে জঙ্গি অনুপ্রবেশের চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে। কাশ্মীর লাগোয়া সীমান্তের ওপারে পাক সেনা ও জঙ্গির সংখ্যা ধীরে ধীরে বাড়াচ্ছে পাকিস্তান। অস্ত্র প্রশিক্ষণ ও রে়ডিও সংযোগ দিয়ে জঙ্গিগোষ্ঠীকে সাহায্য করছে আইএসআই ও পাক সেনাবাহিনী। ড্রোনের সাহাষ্যে সীমান্ত এলাকায় অস্ত্র সরবরাহের অভিযোগও উঠেছে। এমতাবস্থায় এই ড্রোনের নজরদারীতে সতর্ক পাঞ্জাব পুলিশ।