অন্ধ্রপ্রদেশের প্রাক্তন স্পিকার কোডেলা শিব প্রসাদ রাওয়ের আত্মহত্যা, দুর্নীতি মামলার চাপেই আত্মহত্যা!
কোডেলা শিবাপ্রসাদ। (Photo Credits: Facebook)

হায়দ্রাবাদ, ১৬ সেপ্টেম্বর:  Kodela Siva Prasada commits suicide: অন্ধ্রপ্রদেশ বিধানসভার প্রাক্তন স্পিকার তথা রাজ্যের প্রাক্তন মন্ত্রী কোডেলা শিবপ্রসাদ রাও (Kodela Siva Prasad) আত্মহত্যা করলেন। নিজের বাসভবনে গলায় দড়ি দিয়ে আত্মহত্যা করেন চন্দ্রবাবু নায়ডু-র দল টিডিপি-র শীর্ষস্থানীয় নেতা শিবপ্রসাদ। ৭২ বছরের রাজ্যের জনপ্রিয় এই টিডিপি নেতার পরিবারের সদস্যরা জানান, সকালের খাবার খেয়েই কারোর সঙ্গে কোনও কথা না বলে উপরে নিজের ঘরে চলে যান। তারপর অনেকক্ষণ ডাকাডাকির পরেও তার সাড়া মেলেনি। এরপর তাঁকে ঝুলন্ত অবস্থায় নিজের ঘর থেকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানেই তাঁকে মৃত বলে ঘোষণা করা হয়।

অভিযোগ, রাজ্যের শাসক দল জগনমোহন রেড্ডি-র সরকার তাঁর বিরুদ্ধে একাধিক মামলা দায়ের করায় মানসিক চাপ সহ্য করতে না পেরে আত্মহত্য়া করলেন শিবপ্রসাদ। রাজ্য বিধানসভার আসবাবপত্র চুরি সহ শিবপ্রসাদ ও তাঁর সন্তানদের ওপর মোট ১৫টি মামলা দায়ের করেছে জগনমোহন রেড্ডির সরকার। ১৫টি মামলার বেশিরভাগই আর্থিক দুর্নীতির। আরও পড়ুন-বিধানসভা নির্বাচনের দিন ঘোষণা শীঘ্রই

জগনমোহন রেড্ডি ক্ষমতায় আসার পর থেকে টিডিপি নেতাদের ওপর রাজ্য সরকারের নানা রকম কড়া পদক্ষেপে রাজ্যের অবস্থা উত্তপ্ত। এমন উত্তপ্ত পরিবেশে বিধানসভার প্রাক্তন স্পিকারের আত্মহত্যা রাজ্যের পরিস্থিতি আরও জটিল করে তুলতে পারে। মোট ৬বার রাজ্যের বিধায়ক ছিলেন তিনি। পঞ্চায়েত মন্ত্রকের মত রাজ্য মন্ত্রিসভার গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করেছেন। ২০১৪ সালে অন্ধ্রপ্রদেশ বিধানসভার স্পিকার পদে নির্বাচিত হন তিনি। পাঁচ বছর তিনি রাজ্য বিধানসভার স্পিকারের দায়িত্ব সামলেছেন।

ক মাস আগে চন্দ্রবাবু নায়ডু-কে বিপুল ভোটে হারিয়ে অন্ধ্রপ্রদেশের ক্ষমতা থেকে সরান জগনমোহন রেড্ডি। ক্ষমতায় আসার পর চন্দ্রবাবু নায়ডু-র বিরুদ্ধে নানারকম পদক্ষেপ নিচ্ছেন জগনমোহন। ক দিন আগেই টিডিপি-র এক রাজনৈতিক কর্মসূচিকে রুখতে চন্দ্রবাবু নায়ডু ও তার দলের বেশ কয়েকজন নেতাকে গৃহবন্দি করে রাখা হয়েছিল। চন্দ্রবাবু নায়ডু-র অভিযোগ, ক্ষমতা পেয়ে প্রতিহিংসার রাজনীতিতে বুঁদ হয়েছেন জগনমোহন রেড্ডি।