Andhra Pradesh: তেলেঙ্গানার ঘটনা থেকে শিক্ষা, আতঙ্কিত মহিলা সরকারি আধিকারিক জনগণের সঙ্গে দূরত্ব বাড়াতে কষে বাঁধলেন দড়ি
উমা মাহেশ্বরী (Photo Credit: ANI)

বিজয়ওয়াড়া, ৭ নভেম্বর: সরকারি কর্মকর্তাকে তাঁর অফিস চত্বরেই গায়ে কেরোসিন ঢেলে পুড়িয়ে মারল জনতা। তেলেঙ্গানার এই খবর রাষ্ট্র হতেই সমগ্র দাক্ষিণাত্যের সরকারি কর্মকর্তারা প্রাণভয়ে মুহূর্ত গুনছেন। তিনদিন আগেই তেলেঙ্গানার আবদুল্লা পুরমেট এমআরও অফিসে এই ঘটনা ঘটে। বিষয়টি প্রকাশ্যে আসতেই দক্ষিণ ভারতের সরকারি কর্মকর্তাদের আতঙ্কিত। ঘটনাটি অন্ধ্রপ্রদেশের (Andhra Pradesh’s), সেখানকার কুর্নুলের একজন মহিলা তহসিলদার অফিসে ঢুকেই ঠিক করেন অভাব অভিযোগ নিয়ে যাঁরা দেখা করতে আসবেন, তাঁরা যেন তাঁর থেকে নিরাপদ দূরত্বে থাকেন। অর্থাৎ তহসিলদার ও জনগণের মধ্যে ভদ্রস্থ দূরত্ব বজায় থাকে।

অফিসের কর্মীরা কী বন্দোবস্ত করবেন সেদিকে ভরসা না রেখে নিজেই মোটা দড়ি দিয়ে ব্যবধান করে নিয়েছেন। রাজস্ব সংক্রান্ত সমস্যা নিয়ে বাসিন্দারা সরকারি কর্তার সঙ্গে দেখা করতে এসে এই দড়ি দেখে হতভম্ব হয়ে যান। বিষয়টি নিয়ে প্রশ্ন উঠলে ওই সরকারি আধিকারিক জানান, আতঙ্কেই তিনি এই দড়ির ব্যবস্থা করেছেন। তবে এক ঘণ্টার মধ্যে সেই দড়ি সরিয়েও নেন তিনি। সংবাদ সংস্থা এএনআই-এর তথ্যানুসারে জানা গিয়েছে, ওই আতঙ্কিত আধিকারিকের নাম উমা মাহেশ্বরী (Uma Maheshwari)। তিনি স্থানীয় পাট্টিকোন্ডা মণ্ডলের তহসিলদার। বুধবার সকালে একদব লোক তাঁর সঙ্গে দেখা করার অছিলায় প্রায় জোর করেই অফিসে ঢুকে পড়ে। এই খবর পাওয়া মাত্রই ভয় পেয়ে যান তিনি। সঙ্গে সঙ্গে দর্শক ও তাঁর চেয়ারের মধ্যবর্তী জায়গায় একটা দড়ির ব্যারিকেড তৈরি করান।  আরও পড়ুন-Patna School Teacher: ফের শিক্ষকের বিকৃত যৌনতার শিকার নাবালক পড়ুয়া, শিরোনামে পাটনার নামকরা ইংরেজি মাধ্যম স্কুল

এদিকে হায়দরাবাদের রঙ্গারেড্ডি জেলায় জনতার রোষে মৃত মহিলা আধিকারিক। অফিসের মধ্যেই তাঁর গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুন জ্বালিয়ে দেয় কে সুরেশ (K Suresh) নামের এক ব্যক্তি। জানা গিয়েছে জমি সংক্রান্ত ঝামেলা নিয়ে প্রায়শই এই অফিসে আসত অভিযুক্ত যুবক। মহিলা আধিকারিকের সঙ্গে বিভইন্ন সময় তার উত্তপ্ত বাক্য বিনিময়ও হয়েছে। সেদিন সে প্রথমে মহিলা কর্মকর্তা বিজয়া রেড্ডির (Vijaya Reddy) গায়ে কেরোসিন ছড়িয়ে আগুন জ্বালিয়ে দেয়। তারপর একইভাবে নিজেও আত্মাহুতি দেওয়ার চেষ্টা করে। ততক্ষণে দুজনকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে গেলে বিজয়া রেড্ডিকে মৃত বলে ঘোষণা করা হয়। আর সেখানেই চিকিৎসাধীন রয়েছে কে সুরেশ।