Aryan Khan: ২০১৮ সালে আমেরিকায় পড়ার সময় গাঁজা খাওয়া শুরু করেছিলেন আরিয়ান
Aryan Khan (Photo Credit: Instagram)

মুম্বই, ২৮ মে: ২০১৮ সালে আমেরিকায় (USA) পড়ার সময় গাঁজা (Ganja) খাওয়া শুরু করেছিলেন। নারকোটিক্স কন্ট্রোল ব্যুরোর (NCB) কাছে একথা স্বীকার করেছেন অভিনেতা শাহরুখ খান (Shah Rukh Khan) এবং প্রযোজক গৌরি খানের (Gauri Khan) ছেলে আরিয়ান খান (Aryan Khan)। এনসিবি-র তদন্তকারী অফিসার আশিস রঞ্জন প্রসাদের (Ashish Ranjan Prasad) সামনে আরিয়ান এই স্বেচ্ছা বিবৃতি দিয়েছেন। মাদক মামলার চূড়ান্ত চার্জশিটে এই বিবৃতি শুক্রবার বিশেষ এনডিপিএস আদালতে জমা দিয়েছে এনসিবি। যদিও মাদক মামলায় গতকালই আরিয়ানকে ক্লিন চিট দিয়েছে এনসিবি।

এনসিবি অফিসারকে আরিয়ান জানিয়েছেন যে সেই সময়ে তিনি নির্দিষ্ট ঘুমের ব্যাধিতে ভুগছিলেন এবং তিনি ইন্টারনেটে বিভিন্ন রিপোর্ট পড়েছিলেন, যেখানে বলা হয়েছিল গাঁজা ঘুমের ক্ষেত্রে সাহায্য করতে পারে। আরিয়ান জানিয়েছেন যে তিনি গত সাত-আট বছর ধরে অন্য একজন সহ-অভিযুক্ত আরবাজ মার্চেন্টের সঙ্গে বন্ধুত্ব করেছিলেন এবং এমনকি পরবর্তীতে গাঁজা এবং হাশিশ সেবন করেছিলেন। আরিয়ান স্বীকার করেছেন যে আরবাজের সঙ্গে দেখা হলে তিনি মাঝে মাঝেই হাশিশ সেবনের চেষ্টা করতেন। যদিও এটা খুব একটা পছন্দ ছিল না। আরও পড়ুন: Kangana Ranaut: কঙ্গনা রানওয়াতের লজ্জার নজির, অষ্টম দিনে ধক্কর-এর টিকিট বিক্রি ২০টি, ব্যবসা মাত্র ৪,৪২০টাকা

২০২১ সালের ২ অক্টোবর প্রতীক, মানব এবং আরবাজের সঙ্গে কর্ডেলিয়া ক্রুজে চড়তে মার্সিডিজ গাড়িতে করে মুম্বই ইন্টারন্যাশনাল ক্রুজ টার্মিনালে (আইসিটি) গিয়েছিলেন আরিয়ান। আরবাজ তার জন্য হাশিশ আনার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন। আইসিটি-তে চেক-ইন পয়েন্ট অতিক্রম করার সময় আরিয়ানকে আশিস রঞ্জন প্রসাদ আটকান। এরপরই সেখানে হাজির হন তৎকালীন মুম্বাই জোনাল ডিরেক্টর সমীর ওয়াংখেড়ে। সেই শারীরিক অনুসন্ধানের সময় আরিয়ানের কাছ থেকে কোনও মাদক উদ্ধার হয়নি এবং এনসিবি চাইল তিনি তাঁর মোবাইল ফোন দিয়ে দেন।

কিছু মেসেজ চেক করার পর অফিসার আরিয়ানকে জিজ্ঞাসা করেন যে তিনি আরবাজ মার্চেন্টকে চেনেন কি না, যার উত্তরে আরিয়ান হ্যাঁ বলেছিলেন। আশিস রঞ্জন প্রসাদ যখন আরিয়ানকে জিজ্ঞাসা করেছিলেন যে সে মাদকদ্রব্য নিয়ে কাজ করে কি না, আরিয়ান উত্তরে বলেন যে তিনি শুধুমাত্র গাঁজা বা হাশিশের মতো প্রাকৃতিক ওষুধ সেবন করেছেন। আরিয়ান আরও প্রকাশ করেছেন যে আরবাজ এনসিবি-র আইও আশিস রঞ্জন প্রসাদের কাছে অল্প পরিমাণ চরস নিয়ে গিয়েছিলেন এবং সেটি হস্তান্তর করেছিলেন। এটাও জানানো হয়েছিল যে এই চরস কেবলমাত্র সেবন করার জন্যই। এটা সম্ভবত বান্দ্রা থেকে সংগ্রহ করেছিলেন আরবাজ। তারপরে এনসিবি কিছু কিট দিয়ে চরস পরীক্ষা করে একটি থলিতে ভরে সিল করে দেয়। পরে, এনসিবি আরিয়ান এবং তাঁর বন্ধুদের জন্য বরাদ্দ করা সমস্ত কেবিনগুলি পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে সার্চ করে। এরপর অবিলম্বে এনসিবি মুম্বই অফিসে উপস্থিত হওয়ার জন্য নোটিশ জারি করে।

এত কিছুর পরেও আরিয়ানকে গ্রেফতার করে এনসিবি। মেডিকেল-আইনি আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন করার পরে তাঁকে দায়রা আদালতে হাজির করা হয়। আদালত প্রথম আরিয়ানকে এনসিবি হেফাজতে এবং পরে বিচার বিভাগীয় হেফাজতে পাঠায়। আর্থার রোড সেন্ট্রাল জেলে প্রায় ২৮ রাত কাটান আরিয়ান। শুক্রবার এনসিবি-র বিশেষ তদন্তকারী দল তাঁকে 'ক্লিন চিট' দিয়েছে।