Convalescent Plasma Treatment: ডোনাল্ড ট্রাম্পের নির্দেশ, অবশেষে করোনা রুখতে মার্কিন মুলুকে শুরু প্লাজমা থেরাপি
ডোনাল্ড ট্রাম্প (Photo Credits: Getty Images)

ওয়াশিংটন, ২৪ আগস্ট: মার্কিন রাষ্ট্রপতি ডোনাল্ড ট্রাম্পের (Donald Trump) আমলে মার্কিন অর্থনীতি একেবারে খাদের কিনারায় এসে দাঁড়িয়েছে। এর সঙ্গে জুড়েছে ভয়াবহ করোনাভাইরাসের আক্রমণ। সেদেশ এখনও পর্যন্ত প্রায় ১ লাখ ৭৬ হাজারেরও বেশি মানুষ করোনার থাবায় প্রাণ হারিয়েছে। এই মারণ ভাইরাস রুখতে ব্যর্থ ট্রাম্প প্রশাসন। আগামী নভেম্বরেই আমেরিকায় প্রেসিডেন্ট নির্বাচন। তার আগে বিরোধীরা এই বক্তব্যকে সামনে রেখে প্রচার শুরু করেছে। সবমিলিয়ে বেজায় চাপে ডোনাল্ড ট্রাম্প। তা গোদের উপরে বিষ ফোঁড়ার মতো জেঁকে বসেছে কোভিড-১৯। রবিবার সন্ধ্যা নাগাদ তাই করোনা রুখতে প্লাজমা থেরাপির অনুমতি দিল হোয়াইট হাউস। শোনা যাচ্ছিল, প্রেসিডেন্ট আজ কিছু ঘোষণা করবেন। এরপরেই দেখা যায় ফুড অ্যান্ড ড্রাগ অ্যাডমিনিস্ট্রেশন প্লাজমা থেরাপির অনুমতি দিয়েছে।

বিশ্বের বিভিন্ন দেশে করোনা আক্রান্তকে সুস্থ করতে এই প্লাজমা থেরাপি চালু হলেও মার্কিন মুলুকে এতদিন পর্যন্ত তার কোনও অস্তিত্বই ছিল না। যদিও বিশ্বের সবথেকে বেশি করোনা আক্রান্ত ও করোনার বলি এই আমেরিকাতেই। বিষয়টি নিয়ে সেদেশের মানুষের মধ্যে সরকারের বিরুদ্ধে ক্ষোভ জমছে অহরহ। এই পরিস্থিতিতে নির্বাচন হলে ডোনাল্ড ট্রাম্পের জনপ্রিয়তা হারানোর ভয় থেকেই যাচ্ছে। তাই শেষপর্যন্ত প্লাজমা থেরাপির অনুমতি মিললে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে। করোনাকে হারিয়ে সুস্থ হয়ে ওঠা ব্যক্তির শরীর থেকে প্লাজমা নিয়েই আক্রান্তের শরীরে দেওয়া হয়। প্লাজমা থেরাপি আদৌ পুরোপুরি কার্যকরী কি না তা এখনও গবেষণার বিষয়। তবে আক্রান্তের শরীরে এই প্লাজমা গেলে সুস্থ হওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকছে। খেয়াল রাখতে হবে কেউ করোনা আক্রানত হলে প্রায় সঙ্গে সঙ্গেই তাঁর শরীরে এই প্লাজমা থেরাপি চালু করতে হবে। তাহলে সুস্থতার সম্বাবনা বাড়ে। কেননা এই প্লাজমা করোনার বিরুদ্ধে শক্তিশালী অ্যান্টিবডি তৈরি করে, যা রোগীর শরীরে বাইরাস প্রতিরোধে ভীষণ জরুরি। আরও পড়ুন-Congress President Row: সনিয়া গান্ধীকেই সভানেত্রীর পদে দেখতে চান একাধিক কংগ্রেস নেতা, মতবিরোধের চিঠিটি 'অবিশ্বাস্য' মত অশোক গেহলটের

অন্যদিকে খুব অসুস্থ ব্যক্তিকে সুস্থ করতে প্লাজমা থেরাপি কাজ নাও করতে পারে। এই প্রসঙ্গে ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেন, “ফুড অ্যান্ড ড্রাগ কন্ট্রোল অ্যাডমিনিস্ট্রেশনকে আমার ধন্যবাদ। যাঁরা মারণ ভাইরাসকে রুখতে দিনরাত কঠোর পরিশ্রম করে চলেছেন। নিরন্তর গবেষণায় এফডিএ প্রমাণ করেছে যে করোনার আক্রান্তের চিকিৎসায় এই প্লাজমা থেরাপি অত্যন্ত্র কার্যকরী ও নিরাপদ। এই প্লাজমা থেরাপির জন্য ৩ লাখ ৬০ হাজার ইউনিট প্লাজমা সংরক্ষণে সাম্প্রতিককালে আমেরিকান রেডক্রস ও আমেরিকান ব্লাড সেন্টারগুলিকে ২৭০ মিলিয়ন ডলার দেওয়া হয়েছে।”