ছাত্রীর নাম ‘West Bengal’, বিশ্ববিদ্যালয়ের মেধাতালিকা দেখে পড়ুয়াদের চক্ষু চড়কগাছ
প্রতীকী ছবি(Photo Credit- Pixabay)

বর্ধমান, ২৪ জুলাই: ভুলে ভরা মেধাতালিকা নিয়ে বেজায় বিপাকে বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয় (Burdwan University)। সাধারণত স্নাতক স্তরের পড়ুয়াদের প্রাপ্ত নম্বরের ভিত্তিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের ৬০ শতাংশ আসন পূর্ণ হয়। বাকি ৪০ শতাংশ পড়ুয়া আসে বাইরের বিশ্ববিদ্যালয় থেকে। এই বাইরের পড়ুয়ারা প্রবেশিকা পরীক্ষা দিয়ে পাওয়া নম্বরের ভিত্তিতে ভর্তির সুযোগ পান। তেমনি গত রবিবার সংস্কৃত ভাষায় স্নাতকোত্তরে ভর্তির মেধাতালিকা প্রকাশিত হয়েছে। সেখানে ছাত্রীর নাম উঠেছে ‘ওয়েস্ট বেঙ্গল’ (West Bengal) । এহেন মেধাতালিকা দেখেই ক্ষোভে ফুটছে পড়ুয়ারা। কর্তৃপক্ষের দাবি যেভাবে পড়ুয়ারা নাম নথিভুক্ত করেছেন সেভাবেই তালিকা তৈরি হয়েছে। আরও পড়ুন-মুখ্যমন্ত্রীকে খুনের ছক, আইএসআই-এর চরবৃত্তি, মারাত্মক অভিযোগে দিশেহারা শহরের এই স্কুল

এই প্রসঙ্গে বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিন অফ আর্টস রমেন সরের (Ramen Sar) দাবি, ‘‘যেহেতু গোটা প্রক্রিয়াটি অনলাইনে হয়েছে তাই হাতেকলমে নথি-তথ্য খুঁটিয়ে দেখা সম্ভব হয়নি। সে কারণেই ভুল রয়ে গিয়েছে।’’ বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ মনে করছে, অধিকাংশ পড়ুয়ারা বাইরে সাইবার ক্যাফে থেকে ফর্ম পূরণ করেন। সেখান থেকেই এই সমস্যা হয়েছে। যদিও কর্তৃপক্ষের এই দাবি মানতে নারাজ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রনেতা মণিকাঞ্চন মণ্ডল (Student Leader Manikanchan Mondal)। তাঁর মতে এসব বলে দায় এড়ানোর চেষ্টা করছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। মণিকাঞ্চনবাবুর অভিযোগ, সংশ্লিষ্ট মেধাতালিকাটি ভুলে ভরা। সেখানে কারও নাম শুধু আদ্যক্ষর দিয়ে লেখা রয়েছে। আবার কম্পিউটার সায়েন্সের ক্ষেত্রে বেশি নম্বর পাওয়া পড়ুয়াদের নাম তালিকার নিচের দিকে রয়েছে। তিনি বলেন, ‘‘ভুল বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ের পিছু ছাড়ছে না। যাঁরা এই ঘটনার সঙ্গে যুক্ত তাঁদের অবিলম্বে চিহ্নিত করে ব্যবস্থা নেওয়া উচিত।’’

এই ভুলেই ক্ষান্ত দেয়নি, অনলাইনে তৈরি হয়েছে সবকিছু তাই মেধাতালিকায় স্থান পাওয়া পড়ুয়াদের নামের সঙ্গে তাঁদের মোবাইল নম্বরগুলিও ডিসপ্লে হচ্ছে। আর এই ঘটনাতেই তীব্র আপত্তি পড়ুয়াদের। তাঁরা জানিয়েছেন, মেধাতালিকায় নাম থাকা প্রত্যেক পড়ুয়ার পোন নম্বর রাষ্ট্র করে দিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। এতে পড়ুয়ারা নিরাপত্তার অভাব বোধ করছেন। বিশেষ করে সমস্যায় পড়েছেন ছাত্রীরা। এদিকে বিষয়টি নিয়ে কোনওরকম মন্তব্য করেনি বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।