সমুদ্রে স্নান করবেন যুগলে, তাই শিশুপুত্রকে বদ্ধ গাড়িতে বন্দি করে গেলেন বাবা-মা
প্রতীকী ছবি(Photo Credit: Pixabay)

দিঘা, ২৬জুন: বলিহারি বাবা-মা, সমু্দ্র স্নানে (Sea Bath) গিয়ে ভুলেই গেলেন বাচ্চার কথা। ছয় বছরের খুদে তখন বদ্দ গাড়িতে একপোটা অক্সিজেনের জন্য কাতরাচ্ছে। ভাগ্যিস টহলদার পুলিশের নজরে পড়েছিল, নাহলে ফের শ্বাসরোধ হয়ে মৃত্যুর খবর শিরোনামে আসত। অকালেই চলে যেত নিরপরাধ প্রাণ। চাঞ্চল্যকর ঘটনাটি ঘটেছে পূর্ব মেদিনীপুরের সমুদ্র শহর দিঘাতে (Sea Town Digha)। খুদের বাবা-মাকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করছে পুলিশ। প্রয়োজনে তাঁদের গ্রেপ্তারও করা হতে পারে বলে খবর।

জানা গিয়েছে ভাড়ায় একটি সেডান গাড়ি নিয়ে দিঘায় আসেন ওই দম্পতি। সৈকতের পাশের পার্কিংলটে গাড়ি রেখে  নিজেরা সমুদ্র স্নানে চলে যান। গাড়িতেই রেখে যান ছ’বছরের ছেলেকে। যাওয়ার সময় জানলার কাচ ফেলে দিয়ে যান। অন্য গাড়ির সঙ্গে পার্ক করা গাড়িটি বিশেষ ভাবে নজর করার কোনও কারণ নেই। কিন্তু হঠাৎই সৈকতের পাশের রাস্তায় টহলের দায়িত্বে থাকা এক পুলিশ কর্মীর নজরে পড়ে ওই গাড়িটি। তিনি দেখেন, একটি শিশু ওই গাড়ির জানলার কাচে মুখ ঠেকিয়ে কিছু বলার চেষ্টা করছে।

বলা বাহুল্য, প্রথমে ওই কর্মী কিছু বুঝতে পারেননি। তার র তিনি দেখেন, শিশুটি হাত দিয়ে জানলার কাচ খামচে ধরার চেষ্টা করছে। বার বার হাঁ করছে। শ্বাস নেওয়ার চেষ্টা করছে। তখনই তিনি তাঁর সহকর্মীদের খবর দেন। এরপর পুলিশ গাড়ির কাচ ভেঙে ওই বালককে উদ্ধার করে। ভয়ে আতঙ্কে ততক্ষণে কার্যত সংজ্ঞাহীন সে। তাকে সঙ্গে সঙ্গে নিয়ে যাওয়া হয় পুলিশ ফাঁড়িতে। সেখানে চোখে-মুখে জল দিয়ে কিছুটা সুস্থ করা হয়, ততক্ষণে কান্না শুরু করেছে খুদে। পুলিশকে সে জানায়, তার বাবা মা সমুদ্রে স্নান করতে গিয়েছে। যাওয়ার আগে তাকে গাড়ির মধ্যে রেখে দরজা লক করে জানলার কাচ তুলে দিয়ে গিয়েছে তারা। ঘণ্টাখানেকেরও বেশি সময় ধরে আটকানো গাড়িতে প্রচণ্ড গরমে অসুস্থ হয়ে পড়ে সে। সঙ্গে কমে যেতে থাকে গাড়ির মধ্যে থাকা অক্সিজেন। শ্বাসকষ্ট হতে থাকে তার। পুলিশ কর্মীরা জানান, আর একটু দেরি হলে শ্বাসরুদ্ধ হয়ে প্রাণহানি হতে পারত তার।পুলিশ এর পর মাইকে গাড়ির নম্বর ঘোষণা করে শিশুর বাবা-মা-কে চিহ্নিত করে।