বাংলাদেশীদের বাঙালি বলবেন না, পাকিস্তানের অধিনায়ক সরফরাজ আহমেদের অবাক করা মন্তব্য
পাকিস্তানের অধিনায়ক সরফরাজ আহমেদ। (Photo Credits: Getty Images)

লন্ডন, ৮ জুলাই:  Sarfaraz Ahmed। বিশ্বকাপ ২০১৯ (ICC World Cup 2019) -এ বিদায়ের পর পাকিস্তানের অধিনায়ক সরফরাজ আহমেদ গলায় বাঙালি নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্য। লর্ডসে বাংলাদেশকে হারিয়েও নেট রান রেটের ভিত্তিতে চার নম্বরে থাকা নিউ জিল্যান্ডের কাছে হেরে বিদায় নেয় পাকিস্তান। সেই ম্যাচ শেষের পরই পাকিস্তানের তারকা অলরাউন্ডার শোয়েব মালিক ওয়ানডে থেকে অবসর ঘোষণা করেন।

ম্যাচ শেষে প্রেস কনফারেন্সে এসে এক সাংবাদিক পাক অধিনায়ককে প্রশ্নের সময় বাংলাদেশকে বাংলা বলে উল্লেখ করেন। যা নিয়ে সেই সাংবাদিককে বাঙালি বিষয়টা নিয়ে 'সাবধান' করে দেন সরফরাজ। পাক অধিনায়ক বলেন, ''বাঙালি আপত্তিজনক শব্দ...।''আরও পড়ুন-সৌরভ গাঙ্গুলিকে নিয়ে এখন সব বাঙালীর সবচেয়ে আগ্রহের পাঁচটা প্রশ্ন

বাংলাদেশের বিরুদ্ধে ম্যাচে শোয়েব মালিককে কেন ফেয়ারওয়েল দেওয়া হল না, সেই প্রশ্ন সরফরাজের কাছে রাখতে গিয়ে বাংলাদেশিদের বাঙালি বলে উল্লেখ করেন এক সাংবাদিক। সেই প্রশ্ন শুনে সাংবাদিককে উদ্দেশ্য করে সরফরাজ বলেন, 'আপনি কিন্তু আপত্তিকর শব্দ ব্যবহার করছেন। দয়া করে এই শব্দটা ব্যবহার করবেন না। এটা নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় হইচই পড়ে যেতে পারে। আমার মনে হয় বাঙালি নয়, ওদের বাংলাদেশি বলাই ভালো।' তখন সরফরাজ বলেন, 'ওরা বাংলাদেশি, ওদের বাঙালি বললে কিন্তু আপনাকে নিষিদ্ধ করা হতে পারে। বাঙালি আপত্তিজনক শব্দ।' এই বক্তব্য পাকিস্তান ক্রিকেট দলের অধিনায়ক সরফরাজ আহমেদের। প্রেস কনফারেন্সে পাক-বাংলাদেশ ম্যাচ নিয়ে প্রশ্ন করায় এক সাংবাদিককে সতর্ক করে দেন সরফরাজ।

এদিকে, ভারতের কাছে জঘন্য হারের সরফরাজ আহমেদদের নিয়ে পাকিস্তানকে নিয়ে দেশে যতটা মুন্ডুপাত চলছিল, এখন তা নেই। শেষের কটা ম্যাচ দারুণ খেলে নেট রানরেটের ভিত্তিতে বিদায় নেওয়ায় সরফরাজদের নিয়ে বরং পাকিস্তানে সহানুভূতিই রয়েছে। ইংল্যান্ডকে ভারত ম্যাচ ছেড়ে দিয়েছে বলেই সরফরাজ আহমেদরা বিদায় নিয়েছেন, এমনটাই পাকিস্তানের অধিকাংশ মানুষ মন করছেন। আর তাই লিগ পর্যায় থেকে বিদায়ের পরেও সরফারজকে অধিনায়ক রেখে দেওয়া হলে অবাক হওয়ার থাকবে না। ঘনঘন অদিনায়ক বদলের রীতিতে বিশ্বাসী পাকিস্তান কিন্তু দীর্ঘদিন দলনেতা পরিবর্তন করেনি। সরফরাজ নিজে থেকে সরতে নারাজ। পাক বোর্ডের একটা অংশ নতুন করে শুরু করতে বাবর আজমের হাতে দায়িত্ব তুলে দিতে চাইলেও, সরফরাজের পক্ষেও অনেকে আছেন।