KKR: অবিশ্বাস্য লড়াইয়ের পরেও দুর্ভাগ্যের হার, আইপিএলে বিদায় কেকেআর, ইডেনে প্লে অফে নেই কলকাতা
KKR. (Photo Credits: Twitter)

নবি মুম্বই, ১৮ মে: অবিশ্বাস্য লড়াই করেও শেষ পর্যন্ত লখনৌ সুপার জায়েন্টসের কাছে ২ রানে হেরে চলতি আইপিএল থেকে বিদায় নিল কলকাতা নাইট রাইডার্স। জয়ের জন্য ২১১ রান তাড়া করতে নেমে লখনৌয়ের বিরুদ্ধে শেষ ওভারে জিততে হলে কলকাতাকে করতে হত ২১ রান, হাতে ৪ উইকেট। ক্রিজে ছিলেন রিঙ্কু সিং, সুনীল নারিন। মার্কস স্টোয়নিসের করা শেষ ওভারের প্রথম তিনটে বলে রিঙ্কু সিং মারেন চার, ছক্কা, ছক্কা। মানে শেষ ওভারের প্রথম তিন বলে ১৬ রান করে দলকে একেবারে অবিশ্বাস্য জয়ের দোরগড়ায় নিয়ে গিয়েছিলেন রিঙ্কু। এরপর চতুর্থ বলে রিঙ্কু দু রান নেন। কিন্তু তার পরের বলে লুইস অনবদ্য ক্যাচ লুফে রিঙ্কুকে (১৫বলে ৪০) আউট করে দেন। শেষ বলে জিততে হলে কলকাতাকে করতে হত ৩ রান, সুপার ওভারে ম্যাচ টানতে দরকার ছিল ২ রান। কিন্তু স্টোয়নিসের করা ম্যাচের শেষ বলে উমেশ যাদব বোল্ড হয়ে যান।

ম্যাচ হারের সঙ্গে টুর্নামেন্ট থেকে বিদায় নিল কলকাতা। ১৪ ম্যাচে ১২ পয়েন্ট পেয়ে হতাশার আইপিএলটা শেষ হল নতুন অধিনায়ক শ্রেয়স আইয়ারের নেতৃত্বে খেলা শাহরুখ খানের দলের। বিশাল রান তাড়া করতে নেমে এদিন ভাল খেলেন নীতীশ রানা (২২ বলে ৪২), শ্রেয়স আইয়ার (২৯ বলে ৫০)। মাত্র ৭টা বল খেলে ৩টে ওভার বাউন্ডারি মেরে দলকে লড়াইয়ে রেখেছিলেন সুনীল নারিন। নারিন শেষ পর্যন্ত শেষ ওভারে ব্যাট করার সুযোগ পাননি। আরও পড়ুন: সন্তানের জন্মের খবর পেয়ে দেশে ফিরলেন কেন উইলিয়ামসন, শেষ খেলায় ক্যাপ্টেনকে পাচ্ছে না সানরাইজার্স

এদিনের এই ম্যাচ সব দিক থেকেই স্মরণীয়, উত্তেজক, আর বহু রেকর্ড ভাঙা-গড়ার হয়ে থাকল। পুরো ম্যাচে উঠল ৪১৮ রান। সেঞ্চুরি হল, ওপেনিং পার্টনারশিপে হল ২১০ রানের রেকর্ড।

দেখুন টুইট

পুরো ২০ ওভার বল করে লখনৌ সুপার জায়েন্টস-এর একটা উইকেটও তুলতে পারল না কলকাতা নাইট রাইডার্স। বুধবার নবি মুম্বইয়ে কলকাতার বিরুদ্ধে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে লখনৌ নির্ধারিত ২০ ওভারে করল বিনা উইকেটে ২১০ রান। লখনৌয়ের দক্ষিণ আফ্রিকান ব্যাটসম্যান ক্যুইন্টন ডি কক ৭০ বলে ১৪০ রানের অপরাজিত অবিশ্বাস্য ইনিংস খেললেন। লখনৌয়ের অধিনায়ক লোকেশ রাহুল ৫১ বলে ৬৮ রানে অপরাজিত থাকলেন। ডি কক ১০টা ওভার বাউন্ডারি, ১০টা বাউন্ডারি হাঁকালেন। মানে ডি ককের ইনিংসের ঠিক ১০০টা রান এল বলকে বাউন্ডারি পার করে। চলতি আইপিএলে এটি চতুর্থ সেঞ্চুরি ইনিংস। এর আগে চলতি আইপিএলে রাজস্থানের জোস বাটলার দুটি, লখনৌ অধিনায়ক লোকেশ রাহুল একটি সেঞ্চুরি করেছিলেন।

রাহুল হাঁকালেন ৪টি ওভার বাউন্ডারি, ৩টি বাউন্ডারি। আইপিএলের ইতিহাসে কলকাতার বোলারদের সবচেয়ে খারাপ দিনে হতাশার স্পেল উপহার দিলেন প্রায় সবাই। খারাপদের মধ্যে সবচেয়ে খারাপ স্পেল টিম সাউদি-র। ৪ ওভারে কিউই পেসার সাউদি দিলেন ৫৭ রান। রাসেল ৩ ওভারে দিলেন ৪৫ রান। মন্দের ভাল সুনীল নারিন (৪ ওভারে ২৭)।