মহম্মদ শামি-র স্বস্তি: কোর্টে হাজিরায় সাময়িক স্থগিতাদেশের পর দক্ষিণ আফ্রিকা সিরিজে খেলতে বাধা থাকল না
মহম্মদ শামি ও হাসিন জাহান (Photo Credits: IANS/ Instagram)

কলকাতা, ১০ সেপ্টেম্বর: Mohammed Shami Doesn’t Need to Surrender: আপাতত রেহাই পেলেন ভারতীয় ক্রিকেট টিমের পেসার মহম্মদ শামি (Mohammed Shami)। সোমবার আলিপুর আদালত (Alipur Court) মহম্মদ শামিকে জামিন অযোগ্য ধারায় গ্রেফতারের নির্দেশের ওপর অন্তর্বর্তীকালীন স্থগিতাদেশ দিল। গত ২ সেপ্টেম্বর, আলিপুরের (ACJM) অতিরিক্ত মুখ্য দায়রা আদালতে বিচারক সুব্রত মুখার্জী বধূ নির্যাতন মামলায় মহম্মদ শামি ও তাঁর দাদার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়না জারির নির্দেশ দেন।  আগামী ২ নভেম্বর আবার শুনানি হবে। শামি-র বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত হলে তিন বছরের জেলের সাজা হতে পারে।

শামির আইনজীবী জানান, '''শামির নামে যে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি হয়েছিল, তা নিয়মমাফিক ছিল। পরবর্তী শুনানি ২ নভেম্বর, এই বিষয় নিয়ে তখনই আলোচনা হবে।' আরও পড়ুন, বিরাট কোহলিদের বিরুদ্ধে সিরিজে দক্ষিণ আফ্রিকার নতুন ভারতীয় ব্যাটিং কোচ কখনও আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলেননি, জানেন কে

ভারতীয় দলের সঙ্গে ওয়েস্ট ইন্ডিজ (West Indies) সফরে থাকায় ১৫ দিনের মধ্যে মহম্মদ শামিকে কলকাতায় আদালতে হাজিরা দিতে বলা হয়েছিল। না হলে তাঁকে গ্রেফতার করা হবে বলেও জানানো হয়। শামির আইনজীবী জানান, আলিপুর আদালত শামির গ্রেফতারিতে দু' মাসের স্থগিতাদেশ দিয়েছে।এর ফলে দেশের মাটিতে দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে তিন ম্যাচের টেস্ট সিরিজ খেলতে অসুবিধে হবে না তাঁর। অক্টোবরের ২ থেকে ২৩ পর্যন্ত চলবে এই সিরিজ।

প্রসঙ্গত, ২০১৮- র শুরুর থেকে মহম্মদ শামি বিতর্কে জড়িয়ে পড়েন। মহম্মদ শামির স্ত্রী হাসিন জাহান তাঁর বিরুদ্ধে একের পর এক অভিযোগ এনেছেন। যৌন হেনস্থার মামলা, ম্যাচ ফিক্সিং, ধর্ষণ, বধূ নির্যাতন ও খুনের চেষ্টার মতো বহু অভিযোগ করা হয়েছে। ম্যাচ ফিক্সিংয়ের থেকে মুক্তি দেয় বিসিসিআই। তবে বাকি মামলাগুলি চলতে থাকে। শামির স্ত্রী শামির বিরুদ্ধে ডোমেস্টিক ভায়োলেন্সের অভিযোগ এনে আলিপুর (ACJM) আদালতে ৪৯৮এ (গার্হস্থ্য হিংসা) ও ৩৫৪এ (যৌন হেনস্থা) ধারায় মামলা দায়ের করেন ৷ এরপর তাঁকে আদালতের শুনানির জন্য ডাকা হলে তিনি হাজিরা দেন নি। তারপর চার্জশীট গঠন হয় এরপর গ্রেফতারির পরোয়ানা দেওয়া হয়। হাসিন জাহান তাঁর বিরুদ্ধে সংবাদ মাধ্যম, সোশ্যাল মিডিয়ায় নানা মন্তব্য প্রকাশ করেন।