Sharad Navratri 2023: নবরাত্রির সপ্তম দিনে মা দুর্গা কেন কালরাত্রির রূপ নিয়েছিলেন? জানুন পৌরাণিক কাহিনী
Maa Kalratri on the Seventh Day Photo Credit: Twitter@IExist__Still

আজ শারদ নবরাত্রির সপ্তম দিন।মহাসপ্তমী নবরাত্রির সপ্তম দিনে পড়ে। এই দিনে মা দুর্গার সপ্তম রূপ মা কালরাত্রির পূজা করা হয়। সর্বদা শুভ ফল প্রদানের কারণে তাকে শুভঙ্করীও বলা হয়। মা কালরাত্রি দুষ্টদের ধ্বংস করার জন্য পরিচিত, তাই তার নাম কালরাত্রি।

বামন পুরাণ মতে, দেবতারা চরম দুর্দশা কাটাতে বিষ্ণুর কাছে সাহায্য প্রার্থনা করেন। এরপর দেবী পার্বতীর অংশ থেকে কাত্যায়নী রূপ তৈরি হয়। যাকে ধারণ করে জ্যোতিপর্বত। দেবী অষ্টাদশভূজা, কৃষ্ণকেশী, ত্রিনয়না ও সহস্র সূর্যের প্রভাযুক্তা। শিব তাঁকে ত্রিশূল দেন। বিষ্ণু দেন সুদর্শন চক্র। বরুণ দেন শঙ্খ, অগ্নি দেন শক্তি, বায়ু দেন ধনুক, সূর্য দেন তিরভরা তূণীর, ইন্দ্র দেন বজ্র, কুবের দেন গদা, ব্রহ্মা দেন অক্ষমালা ও কমণ্ডলু, কাল দেন খড়্গ ও ঢাল, বিশ্বকর্মা দেন কুঠার ও অন্যান্য যুদ্ধাস্ত্র।

কথিত আছে, শুম্ভ, নিশুম্ভ ও রক্তবীজ বধের জন্য দেবী দুর্গাকে কালরাত্রির রূপ ধারণ করতে হয়েছিল। কালরাত্রি দেবীর শরীর অন্ধকারের মতো কালো। তাদের নিঃশ্বাস থেকে আগুন বের হয়। মায়ের চুলগুলো লম্বা ও বিক্ষিপ্ত। গলার মালা বিদ্যুতের মতো জ্বলে ওঠে। মায়ের তিনটি চোখ মহাবিশ্বের মতো বিশাল এবং গোলাকার। মায়ের চারটি হাত, যার এক হাতে খড়গ অর্থাৎ তরবারি, অন্য হাতে লোহার অস্ত্র, তৃতীয় হাতে অভয় মুদ্রা এবং চতুর্থ হাত বরামুদ্রায়।

মা কালরাত্রি, মা দুর্গার সপ্তম রূপ, তিন চোখের দেবী। কথিত আছে যে নবরাত্রির সপ্তম দিনে নিয়ম অনুসারে মা কালরাত্রির আরাধনা করেন, তার সমস্ত কষ্ট দূর হয়। মা কালরাত্রির আরাধনা করলে ভয় ও রোগ নাশ হয়। এর সাথে ভূত, অকাল মৃত্যু, রোগ, শোক প্রভৃতি সকল প্রকার কষ্ট থেকে মুক্তি পাওয়া যায়।