Kangana Ranaut vs BMC: কঙ্গনা রানাউত কাণ্ডে বিরক্ত বিশ্ব হিন্দু পরিষদ, অযোধ্যায় আর স্বাগত নন উদ্ধব ঠাকরে
উদ্ধব ঠাকরে Uddhav Thackeray

অযোধ্যা, ১১ সেপ্টেম্বর: বলিউড অভিনেত্রী কঙ্গনা রানাউতের সঙ্গে প্রায় সম্মুখ সমরে নেমে পড়েছেন মহারাষ্ট্র মুখ্যমন্ত্রী তথা শিবসেনা প্রধান উদ্ধব ঠাকরে (Maharashtra CM Uddhav Thackeray)। এবার তাঁকেই জবাব দিল বিশ্ব হিন্দু পরিষদ। কঙ্গনা রানাউত পর্বের কারণে অযোধ্যাতে আর কখনওই স্বাগত নন উদ্ধব ঠাকরে। শুক্রবার একথা জানিয়ে দিল বিশ্ব হিন্দু পরিষদ ও অযোধ্যার সাধুরা। কঙ্গনা রানাউতের অফিস ভেঙেছে বৃহন্মুম্বই পুরসভা। এই বিষয়টি নিয়ে ইতিমধ্যেই প্রশ্ন তুলেছেন হনুমান গার্হি মন্দিরের পুরোহিত মহান্ত রাজু দাস। তিনি বলেন, “শিবসেনা ও উদ্ধব ঠাকরে আর কখনওই অযোধ্যায় স্বাগত নন। এবার মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী এখানে প্রবেশের চেষ্টা করলে অযোধ্যাবাসীর তীব্র বিরোধিতার মুখে পড়বেন।”

তিনি আরও বলেন, “অভিনেত্রীর বিরুদ্ধে পদক্ষেপ করতে মহারাষ্ট্র সরকার এক মুহূর্তও নষ্ট করেনি। এদিকে পালঘর কাণ্ডে মৃত দুই পুণ্যার্থীর হত্যাকারীদের বিরুদ্ধে এখনও ব্যবস্থা নেয়নি সেই একই সরকার।” এই প্রসঙ্গে বিশ্ব হিন্দু পরিষদের আঞ্চলিক মুখপাত্র শারদ শর্মা বলেছেন, “এটা একেবারেই স্পষ্ট যে শিবসেনা ইচ্ছাকৃতবাবেই অভিনেত্রীকে টার্গেট করেছে যেহেতু তিনি জাতীয়তাবাদি শক্তিকে সমর্থন জানিয়েছেন। এবং মুম্বইয়ের ড্রাগ মাফিয়াদের বিরুদ্ধে সরব হয়েছেন। কঙ্গনা রানাউতের বিরুদ্ধে বিদ্বেষপূর্ণ কাজ করছে মহারাষ্ট্র সরকার।” ঠিক একই কারণে অযোধ্যার সাধু সমাজের প্রধান মহান্ত কানহাইয়া দাসও মহারাষ্ট্র সরকারকে কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়েছেন। সমাজবিরোধী কার্যকলাপে লিপ্তদের রক্ষা করছে মহারাষ্ট্র সরকার, এই অভিযোগ তুলে মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধব ঠাকরেকে অযোধ্যায় আগমনের জন্য সাবধান করেদিলেন তিনি। আরও পড়ুন-Fake Doctor: পঞ্চম শ্রেণিতে স্কুলছুট, ৬ মাস ধরে ভুয়ো ডাক্তারের চিকিৎসাধীনে করোনা আক্রান্ত পুলিশকর্মীরা?

মহান্ত কানহাইয়া দাস বলেন, “এখন আর উদ্ধব ঠাকরে অযোধ্যায় স্বাগত নন। কেন শিবসেনা রানাউতকে আক্রমণ করছে? তা প্রত্যেকেই বুঝতে পারছেন। এটা রহস্য নয়। বালাসাহেব ঠাকরের তত্ত্বাবধানে থাকা শিবসেনা আর বর্তমানের শিবসেনা এক নয়।” ২০১৮-র ২৪ নভেম্বর অযোধ্যা সফরে এসেছিলেন উদ্ধব ঠাকরে। এরপর গত ২০১৯-এর ১৬ জুন ও চলতি বছর অর্থাৎ ২০২০-র মার্চে  মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী পদে বসার পর অযোধ্যায় আসেন উদ্ধব ঠাকরে।