Lineman Sets Self On Fire: 'ট্রান্সফার চাইলে এক রাতের জন্য বউকে পাঠাতে হবে', অপমানে আত্মঘাতী সরকারি কর্মচারী
Death (Photo Credit: File Photo)

লখনউ, ১১ এপ্রিল: ট্রান্সফার (Transfer) চেয়ে অফিসের বসের কাছে আবেদন করেছিলেন এক সরকারি কর্মচারী। জবাবে তাঁকে বলা হয়েছিল, ট্রান্সফার চাইলে 'এক রাতের জন্য বউকে পাঠাতে হবে'। ক্ষুব্ধ ও অপমানিত হয়ে সেই সরকারি কর্মচারী আত্মহত্যার (Suicide) পথ বেছে নিলেন। ঘটনাটি ঘটেছে উত্তরপ্রদেশের লখিমপুরে (Lakhimpur)। মৃতের নাম গোকুল প্রসাদ (Gokul Prasad)। তিনি বিদ্যুৎ বিভাগের কর্মচারী ছিলেন। ৪৫ বছরের গোকুল লখিমপুরে জুনিয়র ইঞ্জিনিয়রের অফিসের (Junior Engineer's Office) বাইরে নিজের গায়ে ডিজেল ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেন। তাঁকে দ্রুত হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। চিকিৎসাধীন অবস্থায় রবিবার তাঁর মৃত্যু হয়।

হাসপাতালে মৃত্যুর সঙ্গে লড়াই করার সময় গোকুল পুরো ঘটনা জানিয়েছেন। একটি ভিডিওতে তিনি আত্মহত্যার কারণ বর্ণনা করেছেন। তিনি অভিযোগ করেন যে জুনিয়র ইঞ্জিনিয়র এবং তার সহযোগী তাঁকে হয়রানি করছিলেন এবং তিনি পুলিশের কাছে গিয়েছিলেন, কিন্তু কোনও সাহায্য পাননি। অন্য একটি ভিডিওতে গোকুলের স্ত্রী অভিযোগ করেছেন যে অভিযুক্ত জুনিয়র ইঞ্জিনিয়র গত তিন বছর ধরে গোকুলের উপর নির্যাতন করে আসছিল। যার কারণে গোকুল মানসিক অবসাদে ভুগতে শুরু করেন, ওষুধ খাওয়া শুরু করেন। তাঁকে আলিগঞ্জে ট্রান্সফার করা হয়েছিল। যদিও যাতায়াতের অসুবিধার কারণে তিনি বাড়ির কাছাকাছি ট্রান্সফার চেয়েছিলেন। যদিও তাঁকে বলা হয়েছিল, "আপনার স্ত্রীকে আমাদের সঙ্গে শুতে দিন, আমরা আপনাকে ট্রান্সফার করে দেব।" স্ত্রীর আরও অভিযোগ যে আগুন লাগিয়ে দেওয়ার পরে গোকুলকে উদ্ধারে কেউ আসেনি। জুনিয়র ইঞ্জিনিয়র সেখানে দাঁড়িয়ে দেখছিলেন সবকিছু। আরও পড়ুন: Gujarat: গুজরাটে রাসায়নিক কারখানায় বিস্ফোরণ, ভয়াবহ আগুন প্রাণ কাড়ল ৬ জনের

ঘটনায় জুনিয়র ইঞ্জিনিয়র নগেন্দ্র কুমার এবং একজন কেরানিকে সাসপেন্ড করা হয়েছে। অন্যদিকে, অভিযোগ পেয়ে পুলিশ ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে। সিনিয়র পুলিশ অফিসার সঞ্জীব সুমন বলেন, "লাইনম্যানের অভিযোগ ছিল যে জুনিয়র ইঞ্জিনিয়র টাকা দাবি করতেন এবং বদলি চাইলে অশ্লীল কথাবার্তা বলতেন। আমরা একটি মামলা দায়ের করেছি। জুনিয়র ইঞ্জিনিয়রকে সাসপেন্ড করা হয়েছে এবং তদন্ত চলছে। আত্মহত্যায় প্ররোচনার অভিযোগে মামলা রুজু করা হয়েছে।"