Ghaziabad Couple Dies: চিড়িয়াখানায় গিয়ে হৃদরোগে মৃত্যু স্বামীর, ২৪ ঘণ্টার মধ্যে আত্মঘাতী স্ত্রী

স্বামীর নিথর দেহ দেখে নিজেকে সামলাতে পারলেন না অঞ্জলি। সাত তলা অ্যাপার্টমেন্টের বালকনি থেকে ঝাঁপ দেন তিনি। গুরুতর জখম অবস্থায় তাঁকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানাই মারা যান তিনি।

খবর Aishwarya Purkait|
Ghaziabad Couple Dies: চিড়িয়াখানায় গিয়ে হৃদরোগে মৃত্যু স্বামীর, ২৪ ঘণ্টার মধ্যে আত্মঘাতী স্ত্রী
Ghaziabad Couple Dies (Photo Credits: X)

নয়া দিল্লি, ২৭ ফেব্রুয়ারিঃ তিন মাসও হয়নি বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হয়েছিলেন দম্পতি। সুখের সংসারে ইতি পড়ল স্বামীর হৃদরোগে (Heart Attack) মৃত্যুর পর। স্বামীর মৃত্যু শোক সহ্য করতে না পেরে ছাদ থেকে ঝাঁপ দিয়ে আত্মহত্যা করলেন স্ত্রী।

সোমবার উত্তরপ্রদেশ (Uttar Pradesh) গাজিয়াবাদ (Ghaziabad) নিবাসী ওই নবদম্পতি দিল্লিতে এক চিড়িয়াখানা (Zoo) যাওয়ার পরিকল্পনা বানায়। সেই মত সকাল সকাল চিড়িয়াখানার উদ্দেশ্যে রওনা দেন তাঁরা। কিন্তু বেলা গড়াতে আচমকা ২৫ বছরের অভিষেক বুকে যন্ত্রণা অনুভব করেন। স্ত্রী অঞ্জলিকে সেই কথা জানাতে তিনি স্বামীর বন্ধুদের খবর দেন। অভিষেককে প্রথমে গুরু তেগ বাহাদুর হাসপাতাল নিয়ে যাওয়া হয়। সেখান থেকে তাঁকে অন্য একটি হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়। কিন্তু চিকিৎসকেরা তাঁ

খবর Aishwarya Purkait|
Ghaziabad Couple Dies: চিড়িয়াখানায় গিয়ে হৃদরোগে মৃত্যু স্বামীর, ২৪ ঘণ্টার মধ্যে আত্মঘাতী স্ত্রী
Ghaziabad Couple Dies (Photo Credits: X)

নয়া দিল্লি, ২৭ ফেব্রুয়ারিঃ তিন মাসও হয়নি বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হয়েছিলেন দম্পতি। সুখের সংসারে ইতি পড়ল স্বামীর হৃদরোগে (Heart Attack) মৃত্যুর পর। স্বামীর মৃত্যু শোক সহ্য করতে না পেরে ছাদ থেকে ঝাঁপ দিয়ে আত্মহত্যা করলেন স্ত্রী।

সোমবার উত্তরপ্রদেশ (Uttar Pradesh) গাজিয়াবাদ (Ghaziabad) নিবাসী ওই নবদম্পতি দিল্লিতে এক চিড়িয়াখানা (Zoo) যাওয়ার পরিকল্পনা বানায়। সেই মত সকাল সকাল চিড়িয়াখানার উদ্দেশ্যে রওনা দেন তাঁরা। কিন্তু বেলা গড়াতে আচমকা ২৫ বছরের অভিষেক বুকে যন্ত্রণা অনুভব করেন। স্ত্রী অঞ্জলিকে সেই কথা জানাতে তিনি স্বামীর বন্ধুদের খবর দেন। অভিষেককে প্রথমে গুরু তেগ বাহাদুর হাসপাতাল নিয়ে যাওয়া হয়। সেখান থেকে তাঁকে অন্য একটি হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়। কিন্তু চিকিৎসকেরা তাঁকে মৃত বলের জানিয়ে দেন। মৃত্যুর কারণ হিসাবে হৃদরোগকে চিহ্নিত করেছেন চিকিৎসকেরা। সোমবার রাতেই গাজিয়াবাদের বৈশালী এলাকায় নিজের বাড়িতে নিয়ে আসা হয় যুবকের দেহ।

স্বামীর নিথর দেহ দেখে নিজেকে সামলাতে পারলেন না অঞ্জলি। সাত তলা অ্যাপার্টমেন্টের বালকনি থেকে ঝাঁপ দেন তিনি। গুরুতর জখম অবস্থায় তাঁকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। মঙ্গলবার সকালে চিকিৎসা চলাকালীন মৃত্যু হয় অঞ্জলি।

মৃত দম্পতির এক আত্মীয় জানিয়েছেন, 'অভিষেকের দেহ বাড়িতে আনার পর অঞ্জলি স্বামীর মাথার কাছে বসে নাগাড়ে কেঁদে যাচ্ছিল। আচমকা উঠে বালকনির দিকে ছুটে যায়। আমার মনেই হয়েছিল সে হয়তো ঝাঁপ দেওয়ার জন্যেই সেদিকে যাচ্ছে। তার পিছনে আমিও ছুটে যাই। কিন্তু আমি পৌছনোর আগেই অঞ্জলি ঝাঁপ দিয়ে দেয়'।

শহর পেট্রল ডিজেল
View all
Currency Price Change