Odd-Even in Delhi: রাজধানীতে দূষণের দায়ে ট্রাফিক পুলিশের জরিমানার মুখে বিজেপি নেতা, কী বললেন তিনি?
বিজয় গোয়েল (Photo Credit: ANI)

নতুন দিল্লি, ৪ নভেম্বর: উপর্যুপরি বেড়ে চলা দূষণ কমাতে দিল্লির আপ সরকার জোড় বিজোড় (Odd-Even) নীতি চালু করে গাড়ি চলাচল ঠিক করেছে। আজ থেকেই এবছর সেই জোড় গাড়ি চলাচল শুরু হতেই বিপত্তি। সাধারণ মানুষ নিয়ম মানলেও বিজোড় গাড়ি নিয়ে রাস্তায় বেরিয়ে সেই নিয়ম ভাঙলেন বিজেপি নেতা বিজয় গোয়েল (Vijay Goel)। নিয়ম ভেঙে আবার তর্কও জুড়লেন তিনি। আপ সরকারকে একহাত নিয়ে তাঁর বক্তব্য, এই জোড় বিজোড় নীতির গাড়ি চালু রাখা আসলে একটা গিমিক। তাহলে আর খড় বিচালি পোড়ানোকে দূষণের জন্য দায়ী করা হচ্ছে কেন। আজ অড সংখ্যার গাড়ি চালিয়ে তিনি মোটেও দুঃখ প্রকাশ করেননি। উল্টে জরিমানা দিতে রাজি তা জানিয়েছেন।

এদিকে সকাল হতে না হতেই ধোঁয়ার চাদরে (air pollution) আপাদমস্তক মুড়েছে রাজধানী দিল্লি। মুখে মুখোশ ছাড়া বাসিন্দাদের পথে বেরনোই দায় হয়ে পড়েছে। বৃদ্ধ বৃদ্ধা ও শিশুদের অবস্থা আরওই খারাপ। দৃশ্যমানতা এতটাই কম যে আর কিছুক্ষণের মধ্যেই শহরের ব্যস্ততম রাস্তাগুলিতে চার চাকার গতি রুদ্ধ হবে। সামনে দু’তিন মিটারের মধ্যেও কিছু দেখা যাচ্ছে না। ইতিমধ্যেই দিল্লি উপকণ্ঠে (Delhi-NCR) দূষণকালীন জরুরি অবস্থা জারি হয়েছে। সরকারের নির্দেশ আগামী মঙ্গলবার অর্থৎ কাল পর্যন্ত সমস্ত স্কুল কলেজ বন্ধ থাকছে। এদিকে দিল্লি বিমানবন্দর, সাউথ ব্লক, নর্থ ব্লক, লালকেল্লা-সহ গুরুত্বপূর্ণ এলাকাগুলিতে রক্ষীদের জন্য কয়েক হাজার মাস্ক দিয়েছে সিআইএসএফ। শহর জুড়ে একাধিক হাসপাতালে শ্বাসকষ্ট নিয়ে ভর্তি হওয়া রোগীদের আইসিইউতে স্থানান্তরিত করতে হচ্ছে। আরও পড়ুন-Delhi Air Pollution: দূষণের কবলে রাজধানী প্রাণে বাঁচতে বাসিন্দারা রাজ্য ছাড়ছেন, ফের শুরু গাড়ির জোড়-বিজোড় নীতি

উল্লেখ্য, দূষণ রোধে নিয়ম না মানায় গত কাল ৩৮ জনকে গ্রেফতার করা নয়ডা ও গ্রেটার নয়ডায়। জমি বাড়ির দুই কারবারিকে ৫ লক্ষ টাকা করে জরিমানাও করা হয়েছে। মোটৈমুটি দীপাবলির পর থেকেই দিল্লিতে দূষণের মাত্রা হু হু করে বেড়েছে। বাধ্য হয়েই গাড়ির জোড় বিজোড় নীতি (odd-even) সোমবার থেকে চালু হচ্ছে, চলবে আগামী ১৫ তারিখ পর্যন্ত। এরমধ্যে ফরিদাবাদ, গুরুগ্রাম, গাজিয়াবাদ ও নয়ডায় দূষণের মাত্রা বিপজ্জনক সীমায় পৌঁছেছে। এই পরিস্থিতি থেকে বাঁচতে সাময়িক সময়ের জন্য রাজধানীর ১৬ শতাংশ বাসিন্দা অন্যত্র চলে যেতে চাইছেন। আর এই দূষণের প্রকোপ থেকে বাঁচতে ৪০ শতাংশ বাসিন্দা পাকাপাকিভাবে রাজধানী ছাড়তে চান। তবে পরিস্থিতি যতই খারাপ হোক না কেন আশার খবর এই যে, তাঠিক করতে রাজধানীতে আসতে চলেছে বৃষ্টি। আগামী সাত ও আট নভেম্বর ঘূর্ণিঝড় মহার প্রভাবে পাঞ্জাব, হরিয়ানা, রাজস্থান ও দিল্লিতে বিক্ষিপ্তভাবে বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে। এতে পরিস্থিতির কিছুটা উন্নতি হবে বলে আশা করা হচ্ছে।