CAB: সকালে অমিত শাহের সমালোচনা, বিকেলে ভারত সফর বাতিল বাংলাদেশের বিদেশমন্ত্রী একে আবদুল মোমেনের
বাংলাদেশের বিদেশমন্ত্রী একে আবদুল মোমেন (Photo Credits: Twitter)

ঢাকা, ১২ ডিসেম্বর: কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের (Amit Shah) সমালোচনা করার পর এবার ভারত সফল বাতিল করলেন বাংলাদেশের (Bangladesh) বিদেশমন্ত্রী একে আবদুল মোমেন (Foreign Minister Dr AK Abdul Momen)। ১২-১৪ ডিসেম্বর ভারত সফরের কথা ছিল বাংলাদেশের বিদেশমন্ত্রীর। যদিও তিনি সেই সফর বাতিল করেছেন। তিনি জানান, দেশে তাঁর কয়েকটি কর্মসূচি রয়েছে সেই কারণেই সফর বাতিল হয়েছে। মোমেন বলেন, "আমাকে 'বুদ্ধিজীবী দিবস' এবং 'বিজয় দিবস'-র অংশ নিতে হবে এবং এছাড়া আমাদের প্রতিমন্ত্রী মাদ্রিদে রয়েছেন। এবং আমাদের বিদেশ সচিব হেগ শহরে রয়েছেন। তাই আমাকে দিল্লি সফর বাতিল করতে হয়েছে।" তিনি আরও বলেন, "দেশে থাকার প্রয়োজনীয়তার কথা বিবেচনা করে আমি এই সফর বাতিল করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। তবে আমি জানুয়ারিতে পরবর্তী সভায় অংশ নেওয়ার অপেক্ষায় রয়েছি। আমি আমাদের ডিজিকে অনুষ্ঠানে যোগ দেওয়ার জন্য পাঠিয়েছি।"

বাংলাদেশে ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের অবস্থার বিষয়ে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের (Amit Shah) মন্তব্যের কড়া প্রতিক্রিয়া দিয়েছে বাংলাদেশ (Bangladesh)। অমিত শাহের দাবি তারা খারিজ করেছে। সোমবার লোকসভায় 'বিতর্কিত' নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল (Citizenship Amendment Bill) নিয়ে বিতর্ক চলাকালীন আমিত শাহ বলেছিলেন, "বাংলাদেশের ধর্মীয় সংখ্যালঘু হিন্দুরা তাদের ধর্মীয় কর্মকাণ্ড পালন করা অসম্ভব বলে মনে করেছিলেন।" মঙ্গলবার সকালে এনিয়ে কড়া প্রতিক্রিয়া দেন বাংলাদেশের বিদেশমন্ত্রী একে আবদুল মোমেন বলেন, "হিন্দুদের উপর নির্যাতনের বিষয়ে বিজেপি সরকার যা বলছে তা অযৌক্তিক এবং অসত্য।" আরও পড়ুন: Citizenship Amendment Bill: 'হিন্দুদের উপর নির্যাতনের বিষয়ে অমিত শাহের দাবি অযৌক্তিক এবং অসত্য', কড়া প্রতিক্রিয়া বাংলাদেশের

তিনি বলেন, "বিশ্বের খুব কম দেশ আছে যেখানে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি ভালো। সেই রকম দেশ হল বাংলাদেশ। আমাদের দেশে কোনও সংখ্যালঘু নেই। আমরা সবাই সমান। তিনি (অমিত শাহ) কয়েকমাস বাংলাদেশে থাকলেই আমাদের দেশের অনুকরণীয় সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি দেখতে পাবেন।" মোমেন বলেন, "ভারতে অনেক সমস্যা আছে। তারা নিজেদের মধ্যে লড়াই করুক। সেটা যেন আমাদের বিরক্ত করে না। বন্ধুত্বপূর্ণ দেশ হিসাবে আমরা আশা করি যে ভারত আমাদের বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ককে প্রভাবিত করে, এমন কিছু করবে না।" হাসিনা সরকারের বিদেশমন্ত্রী বলেন, "এই বিষয়টি সবেমাত্র আমাদের নজরে এসেছে। আমরা সবকিছু খতিয়ে দেখব এবং তারপর আমরা ভারতের সঙ্গে বিষয়টি নিয়ে কথা বলব।"