চায়না টাউনে জোড়া খুন: স্ত্রী-কে খুন করতে দেখে ফেলায় ৮৯ বছরের বৃদ্ধ বাবাকেও মারল ছেলে, খুনের নেপথ্যে পরকীয়া!
Image used for representational purpose

কলকাতা, ২৪ অগাস্ট:  Kolkata Murder: গতকাল গভীর রাতে ট্য়াংরা-র চায়না টাউন এলাকায় জোড়া খুনের ঘটনায় চাঞ্চল্যকর মোড়। ৮৯ বছরের বৃদ্ধ বাবা ও ৬০ বছরের স্ত্রী-কে খুন করল লি ওয়ান সাং-নামের এক ব্যক্তি। খুনের পিছনে রয়েছে পরকীয়া, এমনটা প্রায় পরিষ্কার হয়ে গিয়েছে। জেরায় খুনের কথা স্বীকার করেছে ধৃত লি ওয়ান এমনটাও জানা গিয়েছে। পুলিশ প্রাথমিক তদন্তে নেমেই বুঝতে পেরেছিল জোড়া খুনের পিছনে লি ওয়ান সাংয়ের হাত রয়েছে। তদন্ত যত এগোয় পরিষ্কার হয় বিষয়টি। স্ত্রী-কে খুন করার ঘটনা বাবা দেখে ফেলায়, বৃদ্ধ বাবাকেও অমানবিকভাবে খুন করে লি, এমনটাই খবর।

স্থানীয় টিভি চ্য়ানেলের তদন্তে প্রকাশ, পরকীয়ার জেরে রোজই বাড়িতে অশান্তি হত। দাম্পত্য কলহের সময়ই মারধরের পর বালতির আঘাতে স্ত্রীকে খুন করে লি। আর ছেলের কীর্তি দেখে ফেলাতেই খুন হন বাবাও। আরও পড়ুন-রহস্যজনক জোড়া খুনে চাঞ্চল্য, শ্বশুর ও পুত্রবধূর মৃতদেহ উদ্ধার

অশান্তির পর রাগের মাথায় প্রথমে স্ত্রী-কে বালতির আঘাতে খুন করে লি। লি-য়ের খুনের ঘটনা দেখে ফেলেন বৃদ্ধ বাবা। এরপর বাবাকেও অমানবিকভাবে খুন করে ছেলে। ৭০-৮০ বছর এর এখানে রয়েছেন। বাড়ির ছেলেরা থাকে কানাডায়। পুলিশ সূত্রে খবর, সন্ধ্যায় বাইরে খেতে গিয়েছিলেন লি ওয়াং(৬৬)। লি ঘরে ফেরেন ন্ধে সাড়ে আটটা নাগাদ। তিনি ফিরে দেখেন ভেতর থেকে দরজা বন্ধ। এরপর তিন বারবার স্ত্রীর মোবাইলে ফোন করতে থাকেন। কিন্তু ফোনের অন্যপ্রান্ত থেকে কোনও সাড়া পাওয়া যায়নি।

এরপর লি তাঁর প্রতিবেশীদের বিষয়টি জানান। প্রতিবেশী এক যুবক এসে পাঁচিল টপকে ভেতরে ঢুকে দরজা খুলে দেন। তার পরেই সবাই দুজনের রক্তাক্ত মৃতদেহ দেখাতে পান। একটি দেহের মুখটা ছিল থেঁতলানো। তার দেহ পড়ে উঠোনে। অন্য দেহটি পড়ে দরজার মুখে। বাড়ির দরজা বন্ধ ছিল।