SRH vs DC, IPL 2024: শেষ দুটি ম্যাচে হায়দরাবাদের ৫৫৩! কোটলায় ২৬৬ রান করে সান রাইজার্স যেন রান মেশিন
Travis Head. (Photo Credits: https://twitter.com/IPL)

চিন্নাস্বামীর পর এবার কোটলা। বেঙ্গালুরুর পর এবার দিল্লি। আইপিএলে ফের রেকর্ড রান করল সান রাইজার্স হায়দরাবাদ। শনিবার সন্ধ্যায় দিল্লি ক্যাপিটালসের বিরুদ্ধে কোটলায় প্রথমে ব্যাট করে সান রাইজার্স নির্ধারিত ২০ ওভারে করল ২৬৬ রান। ঠিক তার আগের ম্যাচে দিন পাঁচেক আগে বেঙ্গালুরু চিন্নাস্বামী স্টেডিয়ামে আরসিবি-র বিরুদ্ধে প্রথমে ব্যাট করে সান রাইজার্স করেছিল ২৮৭ রান। তার মানে আইপিএলের শেষ ৪০ ওভারে হায়দারাবাদ করল ৫৫৩ রান। টি-২০ ক্রিকেটে এটা একটা রেকর্ড।

এদিন, ঋষভ পন্থদের বিরুদ্ধে সান রাইজার্স তাদের ইনিংসে ঠিক ২২টা ওভার বাউন্ডারি মারল। বিরাট কোহলিদের বিরুদ্ধেও ঠিক ২২টা ছক্কা হাঁকিয়েছিলেন ট্রাভিস হেড, অভিষেক শর্মা-রা। আইপিএলের একটা ইনিংসে এটাই সবচেয়ে বেশী ওভার বাউন্ডারি হাঁকানোর রেকর্ড। গত সোমবার বেঙ্গালুরুতে ঠিক যেখানে শেষ করেছিলেন সান রাইজার্সের ব্যাটাররা, দিল্লিতে এদিন ঠিক সেখান থেকেই যেন শুরু করলেন হেড-রা। প্রথম বল থেকেই দিল্লির বোলারদের ওপর ঝাঁপিয়ে পড়েন হায়দরাবাদের ব্যাটাররা। সেটা চলে ইনিংসের শেষ বল পর্যন্ত। শেষ বলে ওভার বাউন্ডারি হাঁকিয়ে দলের রানকে ২৬৬-তে নিয়ে যান শাহবাজ আহমেদ।

দেখুন খবরটি

এদিন সানরাইজার্সের ব্যাটিং সুনামিতে বড় ভূমিকা নিলেন অজি ওপেনার ট্রাভিস হেড (৩২ বলে ৮৯), অভিষেক শর্মা (১২ বলে ৪৬) ও শাহবাজ আহমেদ (২৯ বলে ৫৯ রান)। টানা দুটো ম্যাচে সেঞ্চুরির রেকর্ড গড়া থেকে একটুর জন্য বঞ্চিত হন হেড। বেঙ্গালুরুতে বিরাটদের বিরুদ্ধে হেড ৪১ বলে ১০২ রান করেছিলেন। তার মানে শেষ দুটো ম্যাচ মিলিয়ে হেড ৭৩ বলে ১৯১ রান করে ফেললেন।

আজ, কোটলায় হেড ৬টা ওভার বাউন্ডারি ১১টা বাউন্ডারি। অভিষেক শর্মা-র ৩৮৩ স্ট্রাইক রেটের ইনিংসে ছিল ঠিক ৬টা ওভার বাউন্ডারি। শাহবাজ হাঁকান ৫টি ওভার বাউন্ডারি, ২টি বাউন্ডারি। এ ছাড়াও হেনরিক ক্লাসেন ও নীতীশ রেড্ডি ২টি করে ও আব্দুল সামাদ ১টি করে ওভার বাউন্ডারি হাঁকান। কোটলায় পন্থের প্রত্যাবর্তন ম্যাচে দিলির বোলারদের নিয়ে ছেলেখেলা করেন অভিষেক, হেড-রা। দিল্লির পেসার খলিল আহমেদ ৩ ওবারে দেন ৫১ রান। ললিত যাদব ২ ওভারে ৪১, নোকিয়া ৩ ওভারে ৩১ রান। কুলদীপ যাদব ৪ উইকেট নিলেও ৫৫ রান দেন। মুকেশ কুমার ৪ ওভারে দেন ৫৭ রান। একমাত্র ভাল বল করেন অক্ষর প্যাটেল (৪ ওভারে ২৯ রানে ১ উইকেট)।