ICC World Cup Tickets: ভরছে না স্টেডিয়াম, শেষ মুহূর্তে ফের বিক্রি শুরু বিশ্বকাপ টিকিট, বিরক্ত ভক্তরা
World Cup Tickets (Representational Image) (Photo Credit: Twitter)

ক্রিকেট-পাগল ভারতে এই মুহূর্তে ক্রিকেটের সবচেয়ে বড় ইভেন্ট ওয়ান ডে বিশ্বকাপ আয়োজন করা হয়েছে কিন্তু জাতীয় দলকে সরাসরি খেলতে দেখতে চান এমন ভক্তদের এই বিশেষ সুযোগের জন্য অনেক ঝামেলার সম্মুখীন হতে হচ্ছে। ESPNCricinfo-এর খবর অনুসারে গত ৮ অক্টোবর চেন্নাইয়ে ভারত-অস্ট্রেলিয়া ম্যাচ শুরু হওয়ার কয়েক ঘণ্টা আগে বেশ কয়েকজন ভারতীয় সমর্থক সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করেন, অফিশিয়াল টিকিটিং পার্টনার BookMyShow-এ এখনও টিকিট পাওয়া যাচ্ছে। ভক্তদের অবাক এবং হতাশ হয় কারণ অনলাইনে টিকিট বুক করার তাদের আগের অনেক প্রচেষ্টা ব্যর্থ হয়। ভাগ্যবান কয়েকজন শেষ মুহূর্তে টিকিট পেয়েছেন , কিন্তু অন্য অনেকে যারা হয় সচেতন ছিল না বা স্বল্প সময়ের নোটিশে সুবিধা নিতে অক্ষম হয়। ICC Men's Player of the Month: আইসিসির মাসিক সেরা ক্রিকেটার নির্বাচিত হলেন ভারতের উদীয়মান তারকা শুভমন গিল

তার তিন দিন আগেই আমেদাবাদের নরেন্দ্র মোদী স্টেডিয়ামে বিশ্বকাপ শুরু হয়। যার ফলে প্রশ্ন উঠতে শুরু করে, কেন এতগুলি খালি আসন ছিল, যখন খেলার সকালে BookMyShow-এ অধিকাংশ স্ট্যান্ডই 'বিক্রি' দেখিয়েছিল। এই বিভ্রান্তি আরও বাড়িয়ে দিতে এর আগের দিন ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, বিশ্বকাপের উদ্বোধনী ম্যাচের জন্য প্রায় ৪০ হাজার মহিলাকে ফ্রি টিকিটের পাশাপাশি জলখাবার দেওয়া হচ্ছে। এর সঙ্গে প্রশ্ন ওঠে, এত বিপুল সংখ্যায় টিকিট কেনা সম্ভব হল কী করে? আর এই টিকিটের মালিকানা কার হাতে ছিল যখন একজন ব্যবহারকারী BookMyShow তে ভারত ম্যাচের জন্য সর্বোচ্চ দুটি এবং ভারত বাদে অন্য ম্যাচের জন্য চারটি টিকিট বুক করতে পারতেন?

প্রথমেই বিশ্বকাপের টিকিট বিক্রির প্রক্রিয়াটি অপ্রত্যাশিতভাবে বিলম্বিত হয় কারণ সূচি প্রকাশে অভূতপূর্ব বিলম্ব হয়, যা প্রথমে ২৭ জুন ঘোষণা করা হয় এবং পরে ৯ আগস্ট পুনরায় পরিবর্তন করা হয়। ফলে সমর্থকরা, বিশেষ করে যাঁরা খেলা দেখতে যান, তাঁরাও বিপাকে পড়েন। আর এই প্রক্রিয়ার আড়ালে যে অস্বচ্ছতা ছিল সেই নিয়ে প্রশ্ন তোলে, তা পরিস্থিতিকে আরও উত্তপ্ত করে তোলে।

ESPNcricinfo-এ জানা গিয়েছে যে বিসিসিআই রাজ্য সংস্থাগুলিকে বলেছে যে প্রতিটি ভেন্যুকে আইসিসি এবং ভারতীয় বোর্ডের স্পনসর / বাণিজ্যিক অংশীদার / অতিথিদের জন্য বিনামূল্যের টিকিট আলাদা করে রাখতে হবে। পৃথকভাবে, বিসিসিআই-এর পক্ষ থেকে অনুরোধ করা হয়েছে, সদস্য ক্লাব, অনুমোদিত ইউনিট, স্পনসর, প্রাক্তন ক্রিকেটার, আজীবন সদস্য, পুলিশ, স্থানীয় সরকারি আধিকারিকদের জন্য যত বেশি সম্ভব টিকিট ছাড়তে হবে, যা সাধারণত আন্তর্জাতিক এবং আইপিএল উভয় ম্যাচের জন্য টিকিটের একটি উল্লেখযোগ্য অংশ খরচ করে।

স্পোর্টসটার জানিয়েছে, ৬৫ হাজার দর্শক ধারণ ক্ষমতাসম্পন্ন ইডেন গার্ডেন্স বিশ্বকাপের ম্যাচগুলোর জন্য প্রতি ম্যাচ মাত্র ৩২ হাজার টিকিট সাধারণ মানুষের কাছে বিক্রির জন্য ছেড়েছে। প্রায় ৩৭ হাজার যাত্রী ধারণক্ষমতাসম্পন্ন চেপকে মাত্র এক-তৃতীয়াংশ, ১৩ হাজার টিকিট বিক্রির জন্য ছাড়া হয়। আহমেদাবাদের ক্ষেত্রে, সাধারণ মানুষের জন্য এই সংখ্যা প্রায় ১ লক্ষ টিকিটে ওঠে। বিশ্বকাপ শুরুর ৪২ দিন আগে গোটা টুর্নামেন্টের টিকিট এক সঙ্গে বিক্রি না করে বিসিসিআই জানিয়েছে, "সতর্কতার সঙ্গে কয়েকটি ধাপে টিকিট বিক্রি করা হবে।" কাগজে-কলমে এ ধরনের পরিকল্পনাকে সুশৃঙ্খল মনে হলেও ভক্তরা সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে এ বিশৃঙ্খলার চিত্র তুলে ধরেন।

এরপর আরও বিভ্রান্তি ঘটে যখন ৬ সেপ্টেম্বর বিসিসিআই ঘোষণা করে যে, তারা আরও প্রায় ৪ লক্ষ টিকিট ছাড়ছে এবং গত ৮ অক্টোবর আহমেদাবাদে ভারত-পাকিস্তান ম্যাচের জন্য আরও ১৪ হাজার টিকিট দেওয়ার কথা ঘোষণা করে। বিসিসিআই মূলত ৩ সেপ্টেম্বরের টিকিট শুধুমাত্র ভক্তদের জন্য আলাদা করে রাখে। ক্রিকেটের সবচেয়ে বড় স্টেডিয়াম আহমেদাবাদে সেদিন মোট কত টিকিট বিক্রি হয় তা এখনও স্পষ্ট নয়। এরপর ৮ অক্টোবর এবং আবারও ঘোষণা হয়, ১১ অক্টোবর, ভারত-পাকিস্তান ম্যাচের তিন দিন আগে, বিসিসিআই জানিয়েছে, ১৯ অক্টোবর পুণেতে পাকিস্তান ও বাংলাদেশের বিরুদ্ধে ভারতের পরের দুটি ম্যাচের টিকিট বিক্রি করা হবে।