সন্তান লাভের আশায় স্ত্রীর সঙ্গে বন্ধুর ৭৭ বার সঙ্গমে কাজের কাজ হয়নি, থানায় গেলেন স্বামী
প্রতীকী চিত্র( Photo Credit: Pixabay)

বন্ধু ভাগ্যে পুত্র লাভ, এমনটাই  ছিল মনের আশা। কিন্তু ৭৭ বার যৌন সংসর্গের পরেও স্ত্রী সন্তানসম্ভবা না হওয়ায় সেই বন্ধুর বিরুদ্ধে প্রতারণার অভিযোগ এনে মামলা দায়ের করলেন এক ব্যক্তি। পেশায় পুলিশকর্মী অভিযোগকারী আফ্রিকার তানজানিয়ার(Tanzania) বাসিন্দা, তাঁর এহেন কর্মকাণ্ডে রীতিমতো হইচই পড়ে গিয়েছে।

ওই পুলিশ কর্মীর নাম দারিয়াস মাকাবাকো( Darius Makambako )। বছর ছয়েক আগে বিয়ে করেছেন, কিন্তু সন্তান হচ্ছিল না। ডাক্তারের কাছে গেল জানতে পারেন তিনি নিজেই অক্ষম। তাই বন্ধু ইভান্সের(Evans) উপরেই নির্ভর করেন তিনি। অনুরোধ, ‘আমার স্ত্রীকে অন্তঃসত্ত্বা করতে হবে’! শুধু তাই নয়, বন্ধুকে রীতিমতো শর্তও দেন তানজানিয়ার ওই পুলিশ। জানিয়ে দেন, আগামী ১০ সপ্তাহের ৩ বার করে তাঁর স্ত্রীর সঙ্গে যৌনতায় লিপ্ত হতে পারবেন ইভান্স, তার মধ্যে ‘কাজ’ হাসিল করতে হবে! বন্ধুর এমন অদ্ভূত প্রস্তাবের ইভান্স প্রথমে রাজি হননি বলে জানা গিয়েছে। কিন্তু যখন দারিয়াস ভারতীয় মুদ্রায় ৬০ হাজার টাকা দেবেন বলেন, তখন আর না করতে পারেননি ইভান্স। স্থানীয় সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত খবর অনুযায়ী, দারিয়াস মাকাবাকোর স্ত্রী সঙ্গে ৭৭ বার যৌনতায় লিপ্ত হন ইভান্স। কিন্তু, তাতেও বিশেষ লাভ হয়নি। অর্থাৎ টাকা নিয়ে শেষপর্যন্ত ‘কাজ’টা করতে উঠতে পারেননি ইভান্স। তাই তাঁর বিরুদ্ধে প্রতারণার অভিযোগে মামলা ঠুকেছেন পুলিশকর্মী দারিয়াস মাকাবাকো!

জানা গিয়েছে, শুধু মাকাবাকো একাই নন, তাঁর স্ত্রীও মা হতে না পারার দুঃখে অবসাদে ভুগছিলেন, চিকিৎসক সাফ জানিয়ে দিয়েছিলেন, দারিয়াসের সমস্যার কারণে ওই দম্পতির সন্তান হওয়া সম্ভব নয়।  এদিকে সারোগেসির মাধ্যমে সন্তান লাভে আপত্তি ছিল মাকাবাকোর, তাই  বন্ধুর কাছে গিয়েছিলেন। সেই বন্ধুই কিনা স্ত্রীকে চুটিয়ে সম্ভোগ করলেন অথচ কাজের কাজ কিছুই হল না। এটা মেনে নেওয়া সম্ভ ছিল না। বন্ধু দিনের পর দিন তাঁর বাড়িতে আসছেন, স্ত্রীকে নিয়ে রাতে দরজা বন্ধ করছেন, সন্তান লাভের আশায় এসব নিয়ে বিশেষ মাথা ঘামাননি ওই পুলিশকর্মী। কিন্তু সেই সন্তানই যখন এল না তখন কেনই বা এই বেয়াদবি তিনি বরদাস্ত করবেন, তাই কেস ঠুকেছেন।