National Youth Day 2024 Date: জীবনে এগিয়ে যেতে স্বামী বিবেকানন্দের সেরা বাণী, দেখুন
Swami Vivekananda (Photo Credit: Wikimedia Commons)

Swami Vivekananda Birth Anniversary 2024 Date: প্রতি বছর ১২ জানুয়ারি দেশে জাতীয় যুব দিবস (National Youth Day 2024) পালন হয়। দেশের যুবসমাজকে উৎসর্গ করা এই দিবসটি উদযাপনের একটি বিশেষ উদ্দেশ্য রয়েছে। আসলে, এই দিনটি স্বামী বিবেকানন্দ (Swami Vivekananda)-এর জন্মদিন। স্বামীজি ১৮৬৩ সালের ১২ জানুয়ারি কলকাতায় জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর আসল নাম ছিল নরেন্দ্রনাথ দত্ত। শৈশব থেকেই আধ্যাত্মিকতায় আগ্রহী নরেন্দ্রনাথ ২৫ বছর বয়সে সন্ন্যাস গ্রহণ করেন। অবসর গ্রহণের পর তিনি বিবেকানন্দ নামে সারা বিশ্বে খ্যাতি লাভ করেন। তিনি বেদান্তের একজন বিখ্যাত এবং প্রভাবশালী আধ্যাত্মিক গুরু ছিলেন। স্বামী বিবেকানন্দ বিশ্বাস করতেন যে আত্মশুদ্ধির পথ হলো অন্যকে সাহায্য করা। তিনি মানুষকে নিঃস্বার্থ সেবায় নিয়োজিত হতে এবং সমাজের উন্নতির জন্য কাজ করতে উত্সাহিত করেছিলেন। তিনি শিখিয়েছিলেন যে আমরা যত বেশি অন্যদের সেবা করব, তত বেশি আমরা আমাদের হৃদয় ও মনকে শুদ্ধ করতে সক্ষম হব।

জাতীয় যুব দিবসের ইতিহাস

স্বামী বিবেকানন্দের জন্মদিনকে যুব দিবস হিসাবে উদযাপন করা শুরু হয়েছিল ১৯৮৪ সালে। তৎকালীন সরকার স্বামী বিবেকানন্দের চিন্তাভাবনা, আদর্শ এবং তাঁর কাজের পদ্ধতি ভারতীয় যুবকদের জন্য অনুপ্রেরণার উৎস হতে পারে। এই কথা মাথায় রেখে ১২ জানুয়ারি ১৯৮৪ সাল থেকে স্বামী বিবেকানন্দের জন্মবার্ষিকী জাতীয় যুব দিবস হিসাবে উদযাপন শুরু হয়।

যুব দিবসের উদ্দেশ্য

স্বামী বিবেকানন্দ তাঁর চিন্তা ও আদর্শের জন্য বিখ্যাত, তিনি ধর্ম, দর্শন, ইতিহাস, শিল্প, সামাজিক বিজ্ঞান এবং সাহিত্য সম্পর্কে জ্ঞানী ছিলেন। তিনি অনেক অনুষ্ঠানে তরুণদের জন্য তাঁর মূল্যবান চিন্তাভাবনাও শেয়ার করেছেন। তরুণরা যাতে দেশ ও সমাজের জন্য কী করতে পারে তা ভাবতে পারে সেই লক্ষ্যে এই দিবসটি পালিত হয়। আরও পড়ুন: Françoise Bettencourt Meyer: প্রথম মহিলা হিসেবে ১০০ বিলিয়ন ডলারের মালিক ল’রিয়ালের উত্তরাধিকারী ফ্রাঙ্কোয়েস বেটেনকোর্ট মেয়ার্স

স্বামী বিবেকানন্দের বিখ্যাত বাণী - 

‘উঠো, জাগো এবং লক্ষ্যে না পৌঁছানো পর্যন্ত থেমো না।'

স্বামী বিবেকানন্দ আমাদের শিখিয়েছেন যে আমাদের লক্ষ্য এবং আকাঙ্ক্ষা থেকে কখনও হাল ছেড়ে দেওয়া উচিত নয়। তিনি জনগণকে তাদের লক্ষ্য অর্জনের জন্য তাদের প্রচেষ্টায় দৃঢ়প্রতিজ্ঞ এবং অবিচল থাকার আহ্বান জানান। তিনি বিশ্বাস করতেন যে অটল ও অবিচল থাকার মাধ্যমে আমরা আমাদের মনে যা কিছু নির্ধারণ করি তা অর্জন করতে পারি।

'নিজের প্রতি সত্য হোন, তাহলে আপনি বিশ্বের প্রতি সত্য হবেন।'

স্বামী বিবেকানন্দ বিশ্বাস করতেন যে নিজের প্রতি সত্য হওয়াই বিশ্বের প্রতি সত্য হওয়ার চাবিকাঠি। তিনি বিশ্বাস করতেন যে নিজের প্রতি সত্য থাকার মাধ্যমে একজন ব্যক্তি বিশ্বকে ইতিবাচকভাবে প্রভাবিত করতে সক্ষম হবেন।

'নায়ক হও। সবসময় বলো, আমার কোনও ভয় নেই।'

স্বামী বিবেকানন্দ মানুষকে সাহসী হতে বলতেন । তিনি বিশ্বাস করতেন যে ভয়কে মোকাবেলা করে আমরা আমাদের নিজেদের জীবনে সত্যিকারের নায়ক হতে পারি।

'সবচেয়ে বড় পাপ হলো নিজেকে দুর্বল ভাবা।'

স্বামী বিবেকানন্দ বিশ্বাস করতেন যে সবচেয়ে বড় পাপ হল নিজেকে দুর্বল ভাবা। আমাদের সকলেরই মহান হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে, আমরা আমাদের লক্ষ্য অর্জনে সক্ষম নই এই ভেবে নিজেদেরকে সীমাবদ্ধ করা উচিত নয়। তিনি মানুষকে তাদের ক্ষমতায় বিশ্বাস করতে এবং মহত্ত্ব অর্জনের জন্য উত্সাহিত করেছিলেন।