World Obesity Day 2022: স্থূলতাকে দূরে রাখতে চান? বিশ্ব স্থূলতা দিবসে মেনে চলুন এই ৫টি নিয়ম
Representational Purpose Only (Photo Credits: Pixabay)

৪ মার্চ বিশ্বজুড়ে পালিতহয়ে আসছে স্থূলতা দিবস (World Obesity Day 2022)। এই উদযাপনের মূল উদ্দেশ্যই হল বিশ্বব্যাপী যে স্থূলতার সংকট চলছে, তার অবসান ঘটাতে ব্যবহারিক সমাধানের প্রচার করা। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সঙ্গে সরকারিভাবে সম্পর্কিত বিশ্ব স্থূলতা ফেডারেশন এই উদযাপনের আয়োজক  সংস্থা। স্থূলতা এটি রোগ, যা শরীরের অতিরিক্ত মেদকে কাজে লাগিয়ে স্বাস্থ্যের ঝুঁকি বাড়িয়ে দেয়। আজকের দিনে স্থূলতা একটি সর্বজনীন স্বাস্থ্যজনিত সমস্যা। বিশ্ব স্থূলতা দিবস ২০২২-এ LatestLY বাংলা আপনাদের জন্য কতগুলি পদ্ধতি এনেছে, যেগুলি অনুসরণ করলে স্থূলতার সমস্যাকে এড়াতে পারবেন।

ব্যায়াম

স্থূলতা দূর করতে চাইলে অবশ্যই ব্য়ায়াম করুন নিয়মিত। হাঁটহাঁটি করতে পারেন, সাঁতার কাটতে পারেন, অ্যারোবিক্স, জুম্বা, জিম এর মধ্যে পড়ছে। এসব কিছুই আপনাকে স্বাস্থ্য সম্মত জীবনযাপনের সুযোগ দেবে।

ফাইবার সমৃদ্ধ ডায়েট

ফাইবার অর্থাৎ আঁশযুক্ত খাবার খেতে হবে। কারণ আঁশযুক্ত খাবার হজম শক্তি বাড়ায়। আর আপনার হজমশক্তি ভাল থাকলে স্থূলতা ধারেকাছে ঘেঁষবে না।

প্রক্রিয়াজাত এবং  চিনিযুক্ত খাবার কম খান

প্রক্রিয়াজাত ও চিনিযুক্ত খাবার এড়িয়ে চলুন। কারণ এই ধরনের খাদ্যদ্রব্যে ক্যালোরির পরিমাণ বেশি থাকে, যা স্থূলতার সমস্যা বাড়ায়।

দীর্ঘসময় বসে থাকা এড়িয়ে চলুন

এক জায়গায় দীর্ঘসময় বসে থাকবেন না। যেমন ঘণ্টার পর ঘণ্টা চিভি দেখছেন, ভিডিও গেম খেলছেন, মোবাইল গেমে মগ্ন। যে সময় এসের জন্য ব্য়য় করেন, তা কমিয়ে দিন। কারণ দীর্ঘদিন এমনভাবে বসে থেকে সময় কেটে গেলে মানুষ অলস হয়ে পড়বে। চলাফেরার কাজ করতে ইচ্ছে হবে না। এর জেরে আসবে স্থূলতা।

সুখনিদ্রা

যাঁদের সহজে ঘুম আসে না, তাঁরা দীর্ঘ সময় জেগে থাকার কারণে প্রয়োজনের অতিরিক্ত খেয়ে ফেলেন। স্বাভাবিকভাবে শরীরে ক্যালোরি বেড়ে যায়। এমনকী অনির্দার কারমে শরীরে হরমোন নিঃসরণের স্বাভাবিক প্রক্রিয়াও ব্যাহত হয়। বার বার খিদে পায়। তাই স্থূলতা কমাতে রাতে সুখনিদ্রার প্রয়োজন আবশ্যিক।

অনিয়মিত জীবনযাপন স্থূলতার কারণ বহুলাংশে বাড়িয়ে দেয়। বর্তমানে যেকোনও বয়সেই শরীরে স্থূলতা বাসা বাঁধতে পারে। আজ বিশ্ব স্থূলতা দিবসে মনে মনে শপথ নিন যে স্থূলতাকে দূরে রাখতে সমস্তরকম নিময় মেনে চলবেন। তাহলেই স্বাস্থ্যকর জীবন যাপন করতে পারবেন।