পোলাও-য়ে মন চল বৃন্দাবন, রইল ভিন্ন স্বাদের রেসিপি
প্রতীকী ছবি(Photo Credit: Wikimedia Commons)

পোলাও শব্দটি কানে এলেই কেমন যেন মনটা উড়ুউড়ু হয়ে যায়, কষা মাংসের সঙ্গে পোলাও তো ডেডলি কম্বিনেশন। এই সাধ ভোলে সাধ্য কার। আর উইকএন্ড কাছেপিঠে চলে এলেই রসনাপ্রিয় বাঙালি একটু হটকে স্বাদ পেতে চায়। আজ রইল তারই সুলুক সন্ধান।

মিঠা পোলাও (Sweet Pulao)

উপকরণ: গোবিন্দভোগ চাল ২ কাপ, চিনি ১ কাপ, ঘি ২ টেবিল চামচ, কেশর ১ চামচ, নারকেল কোরা ২ কাপ, আমন্ড কুচি ১ চামচ, কাজুবাদাম কুচি ১ চামচ, কিশমিশ ২ চামচ, ছোট এলাচগুঁড়ো ১ চামচ, নুন পরিমাণ মতো।

পদ্ধতি: গোবিন্দভোগ চাল আধ সেদ্ধ করে নামিয়ে রাখুন। কেশর দু’চামচ দুধে গুলে রাখুন। এরপর কড়াইতে চিনি ও জল ফুটিয়ে নিন। চিনির জলে দুধে ভেজানো কেশর দিয়ে দিন। ইতিমধ্যে ভাতে ঘি ও নুন মিশিয়ে তা ঢিমে আঁচে সেদ্ধ হতে দিন। কিছুক্ষণ বাদে ভাত সেদ্ধ হলে তাতে চিনি ও কেশর গোলা জল দিয়ে আঁচ বাড়িয়ে নেড়ে রান্না করুন। জল টেনে গেলে ভাতে নারকেল কোরা, কাজু ও আমন্ডগুঁড়ো, কিশমিশ মিশিয়ে নামিয়ে নিন।

ভোগের পোলাও(Basanti Pulao)

উপকরণ: গোবিন্দভোগ চাল ২৫০ গ্রাম, ঘি ১০০ গ্রাম, কিশমিশ ২৫ গ্রাম, কাজুবাদাম ১০ গ্রাম, গরমমশলা আন্দাজমতো, তেজপাতা ২টি, জায়ফল ১টি, জয়ত্রী ২টো, সাদা জিরে ১ চামচ, সাদা মরিচ ১ চিমটে, চিনি ২ চামচ, নুন স্বাদ মতো।

পদ্ধতি: জায়ফল ও জয়ত্রী গুঁড়ো করে নিন। চাল ধুয়ে জল ঝরিয়ে শুকনো করে নিন। তার সঙ্গে সাদা জিরে ও সাদা মরিচগুঁড়ো মিশিয়ে সবটা শুকনো খোলায় ভেজে নিন। হাঁড়ি আঁচে বসিয়ে ঘি গরম করুন। তাতে তেজপাতা ও গরমমশলা ফোড়ন দিয়ে চালটা দিয়ে দিন। এরপর তাতে নুন ও চিনি মিশিয়ে গরমজল দিয়ে হাঁড়ির মুখ বন্ধ করে দিন। কিছুক্ষণ বাদে একটু নেড়ে দেবেন যাতে হাঁড়ির তলাটা ধরে না যায়। ভাত সেদ্ধ হলে ও জল মরে গেলে তাতে বাকি সব মশলা দিয়ে দিন। হাঁড়ির মুখ বন্ধ করে রেখে দিন। নামানোর আগে ওপর থেকে বাদাম ও কিশমিশ ছড়িয়ে নামান।

মোতি পোলাও(Moti Pulao)

উপকরণ: দেরাদুন চাল ২ কাপ, ঘি ৪ টেবিল চামচ, বড় এলাচ ৪টে, ছোট এলাচ ৪টে, লবঙ্গ ৬টা, দারচিনি ২ টুকরো, কাজুবাদাম ৫গ্রাম, কিশমিশ ১০ গ্রাম, পেস্তা ৫ গ্রাম, সাদা তিল ভাজাগুঁড়ো ২ চামচ, খোয়াক্ষীর ১০০ গ্রাম, চিনি ২ চামচ, ময়দা  চামচ, জায়ফল জয়ত্রী গুঁড়ো ১ চামচ, নুন পরিমাণ মতো।

পদ্ধতি: খোয়াক্ষীর, ময়দা, সাদা তিল গুঁড়ো চিনি সব একসঙ্গে মেখে নিন। তা থেকে ছোট ছোট বলের আকারে গড়ে নিন। এই বল খানিকক্ষণ ফ্রিজে রেখে তা ভেজে নিন। ইতিমধ্যে দেরাদুন চাল ধুয়ে পরিষ্কার করে জল ঝরিয়ে নিন। কড়াইতে ঘি দিয়ে চালটা একটু ভেজে জল দিন। গরমমশলা ও বড় এলাচ একটা কাপড়ে বেঁধে তা ওই জলের মধ্যে দিয়ে দিন। চাল আধ সেদ্ধ হলে গরমমশলার পুঁটুলিটা তুলে ফেলুন। ভাত আর একটু ফুটিয়ে বাড়তি জল ঝরিয়ে রাখুন। এরপর কড়াইতে ঘি গরম করে কাজু ও কিশমিশ হালকা ভেজে তুলে নিন। ওই ঘিয়ের মধ্যে ভাতটা দিন। নুন ও মিষ্টি দিয়ে নাড়ুন। কাজু ও কিশমিশ দিয়ে নেড়ে দিন। ভাত পুরোপুরি রান্না হয়ে গেলে খোয়াক্ষীরের বলগুলো দিন। নেড়ে মিশিয়ে কিছুক্ষণ চাপা দিয়ে রাখুন। নামানোর আগে জায়ফল ও জয়ত্রী ছড়িয়ে নামিয়ে নিন।