Dehydration and Heat Dehydration: ডিহাইড্রেশন এবং হিট ডিহাইড্রেশনের মধ্যে কোনটি বেশি বিপজ্জনক, জেনে নিন ডিহাইড্রেশন এবং হিট ডিহাইড্রেশন সম্পর্কে বিস্তারিত...

প্রচণ্ড রোদ ও গরম বাতাসের কারণে অনেক রাজ্যে জারি করা হয়েছে তাপপ্রবাহের সতর্কতা। তাপপ্রবাহের কারণে ঘাম হওয়ায় শরীরে জলের অভাব হয়, এই সমস্যাকে বলে ডিহাইড্রেশন। শরীরে ডিহাইড্রেশন হলে গলা, চোখ, মুখ শুকিয়ে যায়, ক্লান্তি অনুভব হয় এবং মাথা ঘোরার মতো সমস্যা হয়। ডিহাইড্রেশন শরীরের সঙ্গে মনের উপরও প্রভাব ফেলে। গ্রীষ্মের মরসুমে হিট ডিহাইড্রেশনের ঝুঁকিও বেড়ে যায়। পর্যাপ্ত জল পান না করলে শরীরে পানিশূন্যতা হতে পারে। এই সমস্যা যেকোনও ঋতুতে ঘটতে পারে তবে গ্রীষ্মে শরীরে পানিশূন্যতা ঝুঁকি বেশি থাকে। এর কারণে কিডনি থেকে মস্তিষ্ক পর্যন্ত স্বাস্থ্যের ক্ষতি হতে পারে।

তাপ তরঙ্গ এবং জ্বলন্ত সূর্যের কারণে শরীরে জলের অভাব হলে তাকে বলে হিট বা তাপ ডিহাইড্রেশন। একটি সুস্থ শরীরের জন্য স্বাভাবিক তাপমাত্রা হল ৩৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস। শরীরকে সঠিকভাবে কাজ করার জন্য ৩৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা বজায় রাখতে হয়, তবে গ্রীষ্মকালীন তাপপ্রবাহের কারণে চারপাশের পরিবেশ গরম হয়ে যায়, এই সময় শরীর তাপমাত্রা ঠিক রাখার জন্য ঘামতে শুরু করে, রক্ত চলাচলও বৃদ্ধি পায়। বাইরের তাপমাত্রা খুব বেশি বেড়ে গেলে শরীরের ভিতরে উপস্থিত তরল শরীরের তাপমাত্রা ঠিক রাখার চেষ্টা করে। এর ফলে অতিরিক্ত ঘাম হয়, যার কারণে তাপ থেকে শরীরে পানিশূন্যতার আশঙ্কা বেড়ে যায়।

শরীরে ডিহাইড্রেশন হলে খুব পিপাসা অনুভব হয়, গাঢ় রঙের দুর্গন্ধযুক্ত এবং স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি বা কম প্রস্রাব হয়, এছাড়া মাথাব্যথা, মাথা ঘোরার মতো সমস্যা হয়। ডিহাইড্রেশনের ফলে কিডনির ক্ষতি হয়, কিডনিতে পাথর হওয়ার ঝুঁকিও বেড়ে যায়। মানুষের মস্তিষ্কের ৭০ শতাংশ জল নিয়ে গঠিত, তাই ডিহাইড্রেশনের কারণে মস্তিষ্কে প্রভাব পড়ে। এর ফলে মাথাব্যথা, বিরক্তি, মেজাজ খারাপ থাকা এবং মনোযোগ দিতে না পারার মতো সমস্যা দেখা দিতে পারে। শরীর ও মনের ভারসাম্যের অভাব হতে পারে। একটি গবেষণায় জানা গিয়েছে শরীরে জলের স্তর স্বাভাবিকের থেকে নিচে নেমে গেলে অতিরিক্ত দুশ্চিন্তা, ক্লান্তি এবং বিরক্তির মতো সমস্যা হয়।