President's Rule Imposed In Maharashtra: মহারাষ্ট্রে জারি রাষ্ট্রপতি শাসন, সুপ্রিম কোর্টে গেল শিবসেনা
সনিয়া গান্ধি, উদ্ধব ঠাকরে ও শরদ পাওয়ার (Photo Credits: PTI)

মুম্বই, ১২ নভেম্বর: সব জল্পনার অবসান। মহারাষ্ট্রে ( Maharashtra) জারি হল রাষ্ট্রপতি শাসন (President's Rule)। ভারতীয় সংবিধানের ৩৫৬ ধারা (Article 356) অনুযায়ী রাষ্ট্রপতি শাসনের বিজ্ঞপ্তিতে সই করেছেন রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ (President Ram Nath Kovind)। যদিও এ নিয়ে তীব্র আপত্তি তুলেছে বিরোধীরা। এনসিপি-কে দেওয়া নির্ধারিত সময়সীমার আগেই কীভাবে রাষ্ট্রপতি শাসন জারি করার সুপারিশ করলেন রাজ্যপাল ভগৎ সিংহ কেশিয়ারি (Bhagat Singh Koshiyari), তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে কংগ্রেস। অন্য দিকে সরকার গঠনের জন্য মাত্র এক দিন সময় দেওয়ার সিদ্ধান্তে ক্ষুব্ধ শিবসেনা (Shiv Sena) আদালতের দ্বারস্থ হয়েছে। রাজ্যপাল বিজেপির হয়ে কাজ করছেন বলে তারা দাবি করেছে। ঘটনার নিন্দায় সরব হয়েছে বামেরাও।

মহারাষ্ট্রের রাজনৈতিক দলগুলি সরকার গঠনে ব্যর্থ হওয়ার পরে দিনের শুরুতেই রাজ্যপাল ভগৎ সিং কোশিয়ারি রাজ্যে রাষ্ট্রপতি শাসনের সুপারিশ করেন। কেন্দ্রীয় সরকারকে পাঠানো একটি নোটে কোশিয়ারি উল্লেখ করেছিলেন যে রাজ্যের কোনও রাজনৈতিক দলের সরকার গঠনের জন্য প্রয়োজনীয় সংখ্যার নেই। শনিবার রাজ্যপাল একক বৃহত্তম দল হিসেবে ভারতীয় জনতা পার্টিকে (BJP) সরকার গড়ার জন্য আমন্ত্রণ জানিয়েছেন। তবে, শিবসেনার সঙ্গে মুখ্যমন্ত্রী পদের ভাগাভাগি নিয়ে জটিলতা না মেটায় একা তাদের পক্ষে সরকার গড়ার প্রয়োজনীয় বিধায়ক সংখ্যা ছিল না। তাই তারা সরকার গড়তে পারবে না বলে জানিয়ে দেয়। সোমবার, দ্বিতীয় বৃহত্তম দল শিবসেনাকে সরকার গঠনের জন্য ডাকেন রাজ্যপাল। শিবসেনা ৪৮ ঘণ্টা সময় চেয়েছিল, যদিও রাজ্যপাল সেই দাবি মানেননি। আরও পড়ুন: Maharashtra Govt Formation: মহারাষ্ট্রে রাষ্ট্রপতি শাসনের সুপারিশ কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভার, বিরোধিতা করে সুপ্রিম কোর্টে গেল শিবসেনা

এরপর এনসিপিকে (NCP) ডাকেন কোশিয়ারি। আজ রাত সাড়ে ৮ টা পর্যন্ত তাদের সময় দেওয়া হয়েছিল। তবে তার আগেই মহারাষ্ট্রে রাষ্ট্রপতি শাসন জারির সুপারিশ করে কেন্দ্রীয় সরকারকে নোট পাঠান রাজ্যপাল। কোনও দলই সরকার গঠন করতে না পারায় সাংবিধানিক ভাবে প্রথমে রাজ্যপাল কেন্দ্রকে রাষ্ট্রপতি শাসনের সুপারিশ করেন। এর পরেই ব্রাজিল সফর বিলম্বিত করে জরুরি পরিস্থিতিতে কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভার বৈঠক ডাকেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। তাতে রাষ্ট্রপতি শাসনের পক্ষে সায় দিয়ে এই সংক্রান্ত বিজ্ঞপ্তি জারি করার জন্য রাষ্ট্রপতি ভবনকে সুপারিশ করে মন্ত্রিসভা। সেই বিজ্ঞপ্তিতে রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ সই করার পরেই সাংবিধানিক ভাবে মহারাষ্ট্রে কার্যকরী হল ৩৫৬ ধারা, অর্থাৎ রাষ্ট্রপতি শাসন