নাথুরাম গডসে কে  ‘দেশভক্ত’  বলার পর এবার মহাত্মা গান্ধীকে ‘জাতির সন্তান’  বললেন বিজেপি সাংসদ সাধ্বী প্রজ্ঞা সিং ঠাকুর
সাধ্বী প্রজ্ঞা সিং ঠাকুর (Photo Credit: IANS)

ভোপাল, ২১ অক্টোবর: ‘জাতির জনক’ মহাত্মা গান্ধীকে (Mahatma Gandhi) ‘জাতির সন্তান’ বলে বসলেন ভোপালের বিজেপি সাংসদ সাধ্বী প্রজ্ঞা (Pragya Singh Thakur)। এর আগেই যদিও মহাত্মা গান্ধীর হত্যাকারী নাথুরাম গডসেকে ‘প্রকৃত দেশপ্রেমী’ বলে বিতর্ক বাধিয়েছিলেন সেই তিনিই। সেই সময় সাধ্বী প্রজ্ঞাকে বিজেপির অন্দরেও সমালোচনার মুখে পড়তে হয়েছিল। সেবার চাপে পড়ে যদিও শেষমেশ ক্ষমা চেয়ে নেন তিনি।ওই মন্তব্যের জন্য সাধ্বীকে কখনও ক্ষমা করতে পারবেন না বলে জানিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। তবে শোকজ নোটিস ধরানো ছাড়া বিজেপির তরফে তাঁর বিরুদ্ধে সে ভাবে কোনও পদক্ষেপ করা হয়নি। সেই ঘা এখন শুকোয়নি। ফের ডামাজোলের বাজারে মহাত্মা গান্ধীকে নিয়ে বেফাঁস মন্তব্য করে নতুন বিতর্কে জড়ালেন বিজেপির এই সাংসদ।

উল্লেখ্য, এ বছর মহাত্মা গান্ধীর ১৫০তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে বিভিন্ন শহরে গান্ধী সংকল্প যাত্রা শুরু করেছে বিজেপি। যদিও এখনও পর্যন্ত তাতে অংশ নিতে দেখা যায়নি সাধ্বী প্রজ্ঞাকে। সম্প্রতি ভোপাল রেলস্টেশন পরিদর্শনে গেলে, তা নিয়ে প্রশ্ন করলে সাধ্বী বলেন, ‘‘গান্ধী আমাদের রাষ্ট্রসন্তান। ওঁকে শ্রদ্ধা করি। তা নিয়ে কাউকে কোনওরকম কৈফিয়ত দেওয়ার প্রয়োজন বোধ করি না।’’ মালেগাঁও ব্লাস্ট মামলায় অভিযুক্ত সাংসদ সাধ্বী প্রজ্ঞা সিং ঠাকুরের দাবি যে তিনি গান্ধীর দেখানো পথেই চলেছেন। সর্বদা সেই পথ অনুসরণ করেন তিনি। আরও পড়ুন-পাক অধিকৃত কাশ্মীরে ঢুকে জঙ্গি ঘাঁটি গুঁড়িয়ে দেব', পাকিস্তানি জঙ্গিদের হুঁশিয়ারি দিলেন জম্মু ও কাশ্মীরের রাজ্যপাল সত্যপাল মালিক

তিনি এদিন বলেন, যিনি দেশের জন্য কাজ করেছেন আমি তাঁকেই সম্মান করি। মহাত্মার দেখানো পথেই সর্বদা চলব। যে মহান মণীষিরা যুগে যুগে আমাদের পথ নির্দেশ দিয়েছেন সেগুলি আমরা অনুসরণ করে মেনে চলি। আমরাই তো মানুষের চলার পথকে সুগম করে দিই। নাথুরাম গডসে (Nathuram Godse) একজন দেশভক্ত ছিলেন দেশভক্ত থাকবেনও। কিছু মানুষ তাঁকে কলঙ্কিত করার চেষ্টা করেছে। তবে জনগণ ভোটের ময়দানে এর জবাব দেবে। এদিকে গডসেকে প্রথম হিন্দু সন্ত্রাসবাদী বলেছেন কমল হাসান। গডসে যে গান্ধীকে খুন করেছিলেন তা ফের মনে করিয়ে দিয়ে কমল হাসান (Kamal Haasan) বলেন, বিজেপির উচিত এই বেলা সাধ্বী প্রজ্ঞার জন্য জনগণের কাছে ক্ষমা চেয়ে নেওয়া। আজ যেন সেই প্রসঙ্গ তুলে প্রায়শ্চিত্তের চেষ্টা করতে গিয়ে ফের গোল পাকিয়ে ফেললেন ভোপালের বিজেপি সাংসদ।