PM Narendra Modi's Press Conference: সাংবাদিকদের কোনও প্রশ্ন নিলেন না মোদী, বিরোধীদের কটাক্ষের মুখে প্রধানমন্ত্রী মোদীর প্রথম সাংবাদিক সম্মেলন
প্রচারের শেষদিনে একই সময়ে আলাদা আলাদা সাংবাদিক সম্মেলনে মোদী-রাহুল। (Photo Credits: ANI)

নয়াদিল্লি,১৭ মে: পাঁচ বছর পর অবশেষে সাংবাদিক সম্মেলনে করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী (PM Narendra Modi)। তবে সাংবাদিক সম্মলনে নিজের বক্তব্য রাখলেও সাংবাদিকদের কোনও প্রশ্ন নিতে রাজি হলেন না মোদী।  সাত দফার ভোটপ্রচার শেষে আজ,শুক্রবার পার্টির সদর দফতরে হওয়া প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর প্রথম সাংবাদিক সম্মেলন শেষে 'রে রে' করে উঠলেন বিরোধী নেতারা। বিরোধী নেতারা বললেন, সাংবাদিক সম্মেলনে পুরো চুপ থেকে মোদী বুঝিয়ে দিলেন তিনি আশাবাদী নন। ভোট প্রচার নিয়ে সন্তুষ্টি, সাংবাদিকদের সঙ্গে হাল্কা চালে কিছু কথা বলা, তারপর ফের ক্ষমতায় আসবেন বলার পরই মোদী চুপ হয়ে গেলেন। অমিত শাহ, নরেন্দ্র মোদী- দুই হাইপ্রোফাইল নেতার কথা শেষের পর যখন সাংবাদিকদের প্রশ্নের সময় এল তখন আর প্রধানমন্ত্রী কোনও প্রশ্ন নিলেন না।

মোদীর পাশে বসে চটপট সাংবাদিকদের সব প্রশ্নের উত্তর দিলেন অমিত শাহ। পশ্চিমবঙ্গে হিংসা থেকে সাধ্বী প্রজ্ঞা-র বিতর্কিত মন্তব্য- সাংবাদিকদের প্রশ্নবাণ সব একাই দক্ষতার সঙ্গে সামলালেন অমিত শাহ। সেখানে প্রধানমন্ত্রী মোদী পাশে চুপচাপ বসে থাকলেন। মোদীকে এদিন পুরো হাল্কাচালে কথা বলতে দেখা যায়। মোদী জানান, যেহেতু এই সাংবাদিক সম্মেলনটি অমিত শাহ ও বিজেপি-আহ্বান করেছে তাই নিয়ে সাংবাদিকদের কোনও প্রশ্ন নেবেন না। বিরোধীরা এই সুযোগে প্রধানমন্ত্রী মোদীর প্রথম সাংবাদিক সম্মেলনকে কটাক্ষ করে বলল, এটা প্রেস কনফারেন্স (সাংবাদিক সম্মেলন) নয়, প্রেস অ্যাপিয়ারেন্স (সাংবাদিকদের সামনে আসা)।

এই সাংবাদিক সম্মেলনে মোদী নিজের বক্তব্য রাখার সময় জানান, বিজেপি ফের ক্ষমতায় আসছে। অন্যদিকে, অমিত শাহ বারবার জোর দিয়ে বললেন, ৩০০টির বেশী আসনে জিতে সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে ফের সরকার গঠন করবে বিজেপি। পশ্চিমবাংলায়, ওডিশায় বিজেপি দারুণ ফল করবে বলে অমিত শাহ জানান। পশ্চিমবঙ্গে অশান্তির জন্য মমতা ব্যানার্জির সরকারকেই কাঠগড়ায় তোলেন শাহ। বিজেপি সভাপতি বললেন, ''আমরা তো সারা দেশেই লড়ছি, কেরল-তামিনাড়ুতেও লড়ছি। আমাদের জন্য গন্ডগোল হলে সারা দেশেই হত, শুধু পশ্চিমঙ্গেই কেন অশান্তি হচ্ছে, আপনারা মমতাকে প্রশ্ন করুন।''এবার ভোটের প্রচারে সবচেয়ে বেশি কদর্য ভাষার প্রয়োগের বিষয়টিও উড়িয়ে দিয়েছেন শাহ। নাথুরাম গডসেকে নিয়ে মন্তব্যের জন্য সাধ্বী প্রজ্ঞাকে শো-কজ করেছে বিজেপি, জানালেন অমিত শাহ। উত্তর দেওয়ার জন্য ১০ দিন সময় দেওয়া হয়েছে।