Uddhav Thackeray Swearing-In Ceremony:  আজ ঐতিহাসিক শিবাজি পার্কে মুখ্যমন্ত্রীর পদে শপথ নেবেন উদ্ধব, এই প্রথম সাংবিধানিক পদে ঠাকরে পরিবার
উদ্ধব ঠাকরে (Photo Credit: IANS)

মুম্বই, ২৮ নভেম্বর: বাবা বালাসাহেব ঠাকরের স্মৃতিসৌধ রয়েছে এই শিবাজি পার্কেই (Shivaji Park)। সেখানে আজ বৃহস্পতিবার ঘটতে চলেছে ঐতিহাসিক ঘটনা। মতাদর্শগত বিভক্তি থাকা সত্ত্বেও একজোট হয়ে সরকার গঠন করছে শিবসেনা-এনসিপি-কংগ্রেস। একমাস আগে যা ভাবতেও পারেনি মহারাষ্ট্র-সহ গোটা দেশে তাই করে দেখাল শিবসেনা। মুখ্যমন্ত্রিত্ব পেতে ২৫ বছরের জোট শরিককে বিদায় দিয়ে এনসিপি-কংগ্রেসকে নিয়ে সরকার গড়ার ডাক দিল। তারপরদেবেন্দ্র ফডনবিশ ও অজিত পাওয়ারের হাইভোল্টেজ রাজনৈতিক নাটক তো রয়েইছে। একেবারে পরতে পরতে ক্ল্যাইম্যাক্স সে যাইহোক সব ভাল যার শেষ ভাল তার। সেই কথাকে সত্যি করে আজ মুখ্যমন্ত্রীর পদে শপথ নেবেন (Swearing-In Ceremony) শিবসেনা প্রধান উদ্ধব ঠাকরে (Uddhav Thackeray)। ঠাকরে পরিবারে এই প্রথম কেউ সাংবিধানিক পদ পেতে চলেছেন।

মঙ্গলবার এই মহাজোটের প্রতিনিধিরা সরকার গড়ার দাবি জানিয়ে রাজ্যপাল ভগৎ সিং কোশিয়ারির সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। তার মধ্যেই বুধবার ছিল ফডনবিশের ফ্লোর টেস্ট। তবে অজিত পাওয়ার ভুল বুঝতে পেরে উপমুখ্যমন্ত্রীর পদ থেকে ইস্তফা দিয়ে ফিরেছেন নিজের ঘরে। প্রায় বাধ্য হয়েই হাল ছেড়েছেন ফডনবিশ। তিনি মুখ্যমন্ত্রীর পদ থেকে ইস্তফা দিতেই আবেগঘন টুইট করে ফিরে আসার আশা রেখেছেন অম্রুতা ফডনবিশ। বিজেপি যখন অজিতকে সঙ্গী করে হাত কামডাচ্ছে সারা দেশ তখন দেখছে অমিত শাহ নয় বাজিগর হলেন শরদ পাওয়ার। বুড়ো হাড়ে খেল দেখিয়ে তিনি প্রমাণ করেছেন, সবাই বিকিয়ে যায় না। মহারাষ্ট্র গোয়া নয়। যাইহোক বুধবার রাজ্যাপালের আমন্ত্রণে স্ত্রী রেশমিকে নিয়ে রাজভবনে যান উদ্ধব ঠাকরে। আরও পড়ুন-Uddhav Thackeray Swearing-In Ceremony: আগামীকাল শপথ উদ্ধব ঠাকরের, কে কে পেলেন শপথে আমন্ত্রণ?

সোনিয়া গান্ধী রাহুল গান্ধীকে আমন্ত্রণপত্র পাঠিয়েই ক্ষান্ত হননি উদ্ধব। ছেলে আদিত্যকে রাতেই দিল্লি রওনা করিয়ে দিয়েছেন। যাতে দশজনপথে গিয়ে তাঁদের আমন্ত্রণ জানিয়ে আসেন। শুধু রাহুল বা সোনিয়া নন, আদিত্য সেখানকার নিমন্ত্রণের পর্ব সাঙ্গ করে কাছেই প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিংয়ের বাড়িতেও আমন্ত্রণ জানাতে যান। প্রবীণ কংগ্রেস নেতা আহমেদ পটেল জানিয়েছেন, সংসদে অধিবেশন চলছে, তাই সোনিয়া রাহুল শিবাজি পার্কে উদ্ধব ঠাকরের শপথে উপস্থিত থাকতে পারবেন কি না তা এখনও স্পষ্ট নয়। অন্যদিকে অমিত শাহ ও প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে ফোন করে আমন্ত্রণ জানিয়েছেন উদ্ধব ঠাকরে। মোদি তাঁকে শুভেচ্ছাও জানিয়েছেন। তবে তাঁদের কাছে আমন্ত্রণপত্র পৌঁছেছে কি না তা এখনও স্পষ্ট নয়।