Electric Buses In India: আগামী দু বছরে দেশের প্রতিটি বাস হবে ইলেকট্রিক, মন্তব্য নীতিন গড়করি-র
ইলেকট্রিক বাসের পক্ষে সওয়াল কেন্দ্রীয় মন্ত্রী নীতিন গড়করি। (Photo Credit: File Image)

নয়া দিল্লি, ২৩ সেপ্টেম্বর: আগামী দু বছরের মধ্যে দেশের সব বাস জায়গায় শুধু ইলেকট্রিক বাস (Electric Bus)-ই চলবে। এমন কথাই জানালেন, কেন্দ্রীয় সড়ক পরিবহন ও জাতীয় সড়ক মন্ত্রী নীতিন গড়করি (Nitin Gadkari)। দেশের রাজধানী শহরে মাইক্রো, ছোট এবং মধ্য় উদ্যোগপতিদের নিয়ে আয়োজিত এক অনুষ্ঠান কেন্দ্রীয় মন্ত্রী গড়করি বলেন," আগামী দু বছরের মধ্যে দেশের প্রতিটি বাস ইলেকট্রিক হবে। বায়ো-সিএনজি, জৈব জ্বালানি ইথানল, মিথানল শক্তির মাধ্যমে যান চালানোর দিকে জোর দেওয়া হবে বলেও নীতিন গড়করি জানান। এবারই প্রথম নয়, এর আগেও গড়করি বিকল্প শক্তির ব্যবহারে জোর দেওয়ার কথা বলেছিলেন।

সময়ের চাহিদাতেই আগামী দিনে ইলেকট্রিক বাসের দিকে ঝুঁকবেন সবাই, সে কথাও বলেন গড়করি। তবে কখনই ইলেকট্রিক যান বাধ্যতামূলক করতে গিয়ে পেট্রোল-ডিজেলের গাড়ি নিষিদ্ধ করা হবে না বলেও কেন্দ্রীয় সড়ক পরিবহণ মন্ত্রী আশ্বাস দিয়েছেন। আরও পড়ুন-ভারতের জনগণনাও এবার ডিজিটাল পথে: এবার সেন্সাস হবে মোবাইল অ্যাপের মাধ্যমে, জানালেন অমিত শাহ

দেশকে পরিবেশ বান্ধব করে তুলতে মরিয়া কেন্দ্রীয় সরকার ২০২১ সালের মধ্যে দেশের সব জায়গায় ইলেকট্রিক বাস চালাতে চায়। নীতিন গড়করির দাবি সত্য়ি হল, আগামী দু বছরের মধ্যে দেশে বাস মানেই ইলেকট্রিক বাস হতে চলেছে। এর আগে কেন্দ্রীয় বাজেটে ই-গাড়িক করে ছাড় দিয়ে দেশে ইলেকট্রিক গাড়ির ব্যবহারে জোর দেওয়া হয়েছে।  প্রসঙ্গত, দূষণের কথা মাথায় রেখে বিশ্বের বিভিন্ন জায়গায় ইলেকট্রিক বাস চলছে।

প্রস্তাবিত গাড়ি বাতিল নীতি নিয়ে নীতীন গড়করি জানান, ইতিমধ্যেই তিনি পুরনো গাড়ি বাতিলের নীতি সংক্রান্ত যাবতীয় ক্য়াবিনেট নোটের ফাইলে সই করে দিয়েছেন। অর্থমন্ত্রী নোটে সম্মতিও দিয়ে ফেলেছেন বলেও দাবি গড়করির। সংশ্লিষ্ট মন্ত্রকের কাছে নোটটি পাঠিয়ে অনুমোদনের যাবতীয় প্রক্রিয়া শেষ হবে বলেও তিনি জানিয়েছেন। গাড়ি বাতিল নীতি দু বা তিন চাকাসহ সবধরনের গাড়ির ক্ষেত্রেই লাগু হবে বলে গড়করি জানান। পুরনো গাড়ি বাতিলের নীতি কার্যকর হলে দেশে গাড়ি নির্মাণের ক্ষেত্রে এক হাবে পরিণত হবে বলে দাবি করে গড়করি জানিয়েছেনে, কাঁচামাল পাওয়া যাবে বাতিল স্টিল, অ্যালুমিনিয়াম ও প্লাস্টিক পুনরাবৃত্ত করার ফলে। তাঁর মতে এতে গাড়িশিল্পের ক্ষেত্রে মূল্যও ২০ থেকে ৩০ শতাংশ কমতে পারে।