সংবর্ধনা মঞ্চে শোভন-বৈশাখীকে ‘ভাত-ডাল’ বললেন দিলীপ ঘোষ, কী হল তারপর?
শোভন চট্টোপাধ্যায় ও বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়(File Photo)

কলকাতা, ২০ আগস্ট: গত সপ্তাহে বিধানসভার স্ট্যান্ডিং কমিটি থেকে ইস্তফা দিয়ে মঙ্গলবার রাতে রাজধানী পাড়ি দিয়েছিলেন কলকাতার প্রাক্তন মেয়র শোভন চট্টোপাধ্যায় (Sovan Chatterjee) ও বিশেষ বান্ধবী বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায় (Baishakhi Banerjee)। প্রায় এক সপ্তাহ কাটিয়ে কলকাতায় ফিরলেন এই জুটি। এই কদিনে তাঁদের রাজনৈতিক পরিচয় আমূল বদলে গিয়েছে, দুজনেই এখন বিজেপি নেতা। মঙ্গলবার কলকাতায় ফেরার পরই তাঁদের সংবর্ধনার আয়োজন করে রাজ্যবিজেপি। অনুষ্ঠানের বিজ্ঞপ্তিতে শোভনবাবুর নাম থাকলেও ছিল না বৈশাখীদেবীর নাম। এই নিয়েই শুরু বিতর্ক। অনুষ্ঠানের শুরুতেই শোভন-বৈশাখীকে ‘ভাত ডালে’র সঙ্গে তুলনা করে সেই বিতর্কে ইতি টানতে চাইলেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি। তবে থামা দূরের কথা তাঁর ‘ভাত-ডাল’ মন্তব্যকে ঘিরে বিতর্ক আরও উস্কে উঠল।

কেন অনুষ্ঠানের বিজ্ঞপ্তি থেকে বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়ের নাম বাদ গেল, তানিয়ে সাংবাদিকরা প্রশ্ন করতেই দিলীপ ঘোষ (Dilip Ghosh) বললেন, ‘আমি আসতে বলেছি সবাইকে। সবার তো নাম দিই না আমরা। শোভনদা মেয়র ছিলেন, এখনও বিধায়ক আছেন। তাই তাঁর নাম দেওয়া হয়েছে। তবে, বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়ের নামও দেওয়া উচিত ছিল। আমরা জানি, যেমন ভাত-ডাল, সে রকম শোভনদা আর বৈশাখীদি। আলাদা করে বলার কী আছে!’ সংবর্ধনা অনুষ্ঠানেও এই জুটির মাঝেই বসেছিলেন রাজ্যসভাপতি। সেই সময় শোভনবাবু আচমকা বলেন, বৈশাখী তাঁর বিপদের বন্ধু শুধু নয়, দিলীপ ঘোষের সঙ্গে পরিচয়ের যোগসূত্রও বটে। তবে শোভন দিলীপ যতই চাপা দেওয়ার চেষ্টা করুন না কেন ‘ভাত-ডাল’ প্রসঙ্গ নিয়ে কিন্তু বেশ খুঁত খুঁত করছেন বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়। বলেই ফেললেন সেকথা। আরও পড়ুন-MP Locket Chatterjee on Mid-Day Meal Issue:মিড-ডে মিলের পাতে নুন ভাত খাচ্ছে পড়ুয়ারা, ডিমের ২৫ হাজার টাকা উধাও, শেষ দেখে ছাড়ার হুমকি দিলেন লকেট চট্টোপাধ্যায়

তিনি ভাত ডালের কোনটা তা জানতে চেয়ে বলেছেন, শোভনদা ভাত হলে তিনি তো ডাল। ভাত তো ডালের সঙ্গে মিশে যায়। তার আলাদা কোনও পরিচয় থাকে না। কিন্তু তিনি তো ডাল নন, শোভনবাবুর সঙ্গে কোনওভাবেই মিলে যাননি। তাঁর নিজস্ব একটা আইডেন্টিটি রয়েছে। একইভাবে তাঁকে যদি ভাত বলা হয় মানে ডালকে তিনি টেনে ননিয়ে চলেছেন। তাতেও আপত্তি বৈশাখীর। কেননা তাঁর ঘাড়ে এমনও শক্তি নেই যে ভাত হয়ে ডাল রূপী শোভনকে টানবেন। কেননা শোভনবাবু তাঁর কাছে অনেক বড়মাপের একজন রাজনীতিক। এদিকে শুরুতেই তাল কাটতে চাননি পোড় খাওয়া রাজনীতিক শোভন চট্টোপাধ্যায়। হাসি মুখেই বললেন। তাঁরা দুজনে যে একে অপরের পরিপূরক তা ভালমতোই জানেন দিলীপ ঘোষ। সেকারণেই একথা বলেছেন।