Mumbai Shocker: স্ত্রী অদলবদলের খেলা! মুম্বইয়ে বন্ধুদের দিয়ে স্ত্রী ধর্ষণ করাল ব্যক্তি
(Representational Image | (Photo Credits: PTI)

মুম্বই, ১৯ ডিসেম্বর: 'স্ত্রী অদলবদল' (Wife Swapping') ও তিন বন্ধুকে দিয়ে স্ত্রীকে বিভিন্ন সময় ধর্ষণ (Rape) করানোর অভিযোগে এক ব্যক্তিকে গ্রেফতার করল পুলিশ। মহারাষ্ট্রের মুম্বইয়ের (Mumbai) ঘটনা। ৪৬ বছরের এক ব্যবসায়ীর ইন্ধনে গত ২ বছর ধরে বিভিন্ন সময়ে তারই স্ত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে তিন বন্ধুর বিরুদ্ধে। শুধু তাই নয়, অভিযুক্ত ব্যবসায়ী ধর্ষণের দৃশ্য ভিডিও (Video) করেছে বলেও অভিযোগ করেছেন তার স্ত্রী। পুলিশ ওই ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করেছে। টাইমসস অফ ইন্ডিয়ার এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ওই ব্যক্তিকে ২৩ ডিসেম্বর পর্যন্ত পুলিশ হেফাজতে পাঠিয়েছে আদালত। তার তিন বন্ধুর বিরুদ্ধে FIR দায়ের করেছে পুলিশ।

ওই মহিলা চলতি বছর শ্বশুরকে বিশ্বাস করে সব কথা বলেছিলেন। তবে তিনিও তাঁকে বিষ খাওয়ানোর চেষ্টা করেন বলে অভিযোগ। অভিযুক্ত ব্যবসায়ী তার স্ত্রীকে মেরে ফেলার হুমকি দিয়ে চুপ করিয়ে রেখেছিল বলে অভিযোগ উঠেছে। এতদিন সহ্য করার পর খুবই অসুস্থ হয়ে অগস্ট মাসে মায়ের কাছে গিয়ে থাকা শুরু করেন নিগৃহীতা। তারপরই তিনি পুলিশে অভিযোগ দায়ের করেন। তাঁর অভিযোগ, প্রথম ধর্ষণের ঘটনাটি ঘটে ২০০৭ সালের ১৫ জুন। রাতের খাওয়া-দাওয়ার পর নিজের এক বন্ধুর সঙ্গে তাঁর পরিচয় করে দেয় স্বামী। সেই বন্ধুর সঙ্গে গাড়িতে বেরিয়ে জোর করে সামনে তার পাশের আসনে স্ত্রীকে বসিয়ে দেয় ব্যবসায়ী। সে নিজে গিয়ে বসে পেছনের আসনে। সেখানে তার পাশে বসেছিল বন্ধুটির স্ত্রী। তারা একে-অপরের সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক স্থাপন করে বলে অভিযোগ। আর চালকের আসনে বসে বন্ধুটি নিগৃহীতার শ্লীলতাহানি করে। তিনি আপত্তি জানানোয়, তাঁর স্বামী বলে, "এটা কোনও ব্যাপার না। আর হবে না।" আরও পড়ুন: Ramachandra Guha Detained: বেঙ্গালুরুতে সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনের বিরোধিতায় বিক্ষোভ দেখাতে গিয়ে আটক ইতিহাসবিদ রামচন্দ্র গুহ

তবে পরের বার তাঁর স্বামীর আরেক বন্ধু ধর্ষণ করে। এবং এবারের ঘটনা সম্পর্কে কাউকে কিছু বললে স্বামী তাঁকে হত্যার হুমকি দেয়। পরের কয়েকটি ঘটনায় বন্ধুরা স্বামীর সামনেই তাঁকে ধর্ষণ করে ও ধর্ষণের দৃশ্য ভিডিও করে। ২০০৩ সালে বিবাহিত এই দম্পতির দুটি সন্তান রয়েছে। মহিলা তাদের উভয় সন্তানের হেফাজতসহ বিবাহবিচ্ছেদের আবেদন জানিয়েছেন। অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধির বিভিন্ন ধারায় ধর্ষণ, নির্যাতন ও ভয় দেখানোর অভিযোগে মামলা রুজু করা হয়েছে।