Lockdown Effect on Durga Puja: করোনায় লকডাউনের আঁচ দুর্গাপুজোয়, বাজেটের টানে ম্লান হতে পারে বাঙালির প্রিয় উৎসব
ফাইল ছবি

কলকাতা, ৩ এপ্রিল: করোনার (Coronavirus) মোকাবিলায় আপাতত ২১ দিনের লকডাউন (Lockdown) জারি রয়েছে। যারফলে মুখ থুবড়ে পড়েছে দেশের অর্থনীতি। এর থেকে নিস্তার নেই বাঙ্গালীর প্রিয় দুর্গাপুজোর (Durga Puja)। করোনার কারণে দুর্গাপুজোর বাজেটে বড়সড় কোপ পড়তে চলেছে। আয়োজকদের তরফে বৃহস্পতিবারই জানিয়ে দেওয়া হয়েছে, করোনার প্রকোপে যে সংকটজনক পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে তাতে অর্থনৈতিক ব্যবস্থা রীতিমতো বেসামাল। এমত অবস্থায় কর্পোরেট বিজ্ঞাপন এক ধাক্কায় অনেকটাই কমে গিয়েছে এবং পরবর্তীতে তা আরও কমবে।

অক্টোবরেই দুর্গাপুজো। আর মাত্র ছয় মাস। শুধু ছোট বাজাটের পুজোগুলিই নয়। বিগ বাজেটের পুজোগুলিও প্রায় তাঁদের গতবারের বাজেটের প্রায় ৪০ থেকে ৫০ শতাংশ বাজেট কমাচ্ছে বলে জানা গেছে। মূলত পুজোর সাজসজ্জাতে কাঁচি চালানো হবে। ফোরাম ফর দুর্গোৎসব শহরে দুর্গাপুজোর আয়োজকদের যে সংগঠন রয়েছে তাদের তরফেই বৃহস্পতিবার এই তথ্য জানানো হয়েছে। এই সময়ের খবর অনুযায়ী, ফোরামের প্রেসিডেন্ট কাজল সরকার সংবাদমাধ্যমের কাছে বলেছেন, 'গত বছরেই অর্থনৈতিক শ্লথতার জন্য আমাদের পুজোর বাজেটে বেশ কিছুটা কাটছাঁট করতে হয়েছিল। এই বছর অবস্থা আরও খারাপ হতে চলেছে। অর্থনীতির দুর্দিন তো ছিলই। আর এই মহামারী COVID-19 এর জন্য পুজোর বাজেটে আরও বড়সড় কোপ পড়তে চলেছে।' আরও পড়ুন, রবিবার রাত ৯ টায় ৯ মিনিটের জন্য আলো নিভিয়ে মোমবাতি, টর্চ জ্বালাতে হবে

শহরের অন্যতম বড় পুজো বোসপুকুর শীতলা মন্দিরের আয়োজকরা জানিয়েছেন, গত বছর তাদের বাজেট ছিল ৫৫ লক্ষ টাকা। আর সেটাই এই বছরে হচ্ছে ৩০ লক্ষ টাকা। ব্যক্তিগত অনুদান, চাঁদা মিলিয়ে বাজেটের ২৫ শতাংশ টাকা উঠলে বাকি ৭৫ শতাংশ টাকা আসে কর্পোরেট ফান্ডিং এবং বিভিন্ন বিজ্ঞাপন থেকে। এবছর লকডাউনে ক্ষতির মুখোমুখি বহু সংস্থা। তাই বিজ্ঞাপন নিয়েও সংশয়ে রয়েছে পুজো কমিটিগুলি।