কর্নাটকের পর এবার কংগ্রেস শাসিত আরেক রাজ্যে নজর বিজেপি-র, বাগিচার শহরের রাজ্য হাতছাড়া হওয়ায় রাহুল গান্ধী বলছেন, গণতন্ত্রের পরাজয়
রাহুল গান্ধী। (Photo Credits: ANI)

বেঙ্গালুরু, ২৪ জুলাই: লোকসভা ভোটে দারুণ জয়ের পর কর্নাটক (Karnataka) ও নিজেদের দখলে নিয়ে নিল বিজেপি (BJP)। আস্থা ভোটে এইচি কুমারস্বামীর হারের পর কর্নাটকে বিজেপি সরকার গড়ার পথে। কোনও রকমে সংখ্য়াগরিষ্ঠতা পাওয়া কংগ্রেস-জেডি(এস) জোট সরকার নড়ে গিয়েছিল কর্নাটকে ২৮টি লোকসভা আসনে বিজেপি-র ২৫টিতে জয়ের পর। মোদি টু সরকার গঠনের পরেই কর্নাটকে নাটক শুরু হয়।

কংগ্রেস, জেডি(এস) বিধায়কদের দল ছাড়া, বিক্ষুব্ধদের বেঙ্গালুরু ছেড়ে মুম্বইয়ে হোটেলে বন্দি রাখা সব নিয়ে দু সপ্তাহের টানটান নাটকের পর অবশেষে আস্থা ভোটে ৯৯-১০৫ ভোটে হার হয় মুখ্যমন্ত্রী কুমারস্বামীর। আরও পড়ুন-বকেয়া DA নিয়ে বড় সিদ্ধান্ত মুখ্যমন্ত্রী

ক্ষমতা হাতছাড়া হওয়ার হতাশায় রাহুল গান্ধীর টুইট, '' আস্থা ভোটে জোট সরকারের হার আসলে গণতন্ত্র, সততা আর কর্নাটকরে জনতার পরাজয়।

দেশের রাজনীতিতে নয়া জল্পনা কর্নাটকের পর এবার কী তবে মধ্যপ্রদেশেও কংগ্রেস সরকার টলমল হতে চলেছে! কুমারস্বামীর পর কি এবার কমলনাথের পালা। দেশের রাজনীতির অলিগলিতে কান পাতলে শোনা যাচ্ছে এমন কথা। অনেক বলছেন, মধ্যপ্রদেশ নয়, তার আগে কংগ্রেস হারাতে পারে রাজস্থান। কর্নাটক হাতছাড়া হওয়ার পর কংগ্রেস আর দেশের মাত্র চারটি রাজ্যে সরকারে আছে। সঙ্গে মাত্র একটি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে আছে কংগ্রেস সরকার। কিন্তু যেভাবে পদ্ম ঝড় চলছে তাতে নরেন্দ্র মোদির ডাকে কংগ্রেস মুক্ত ভারত খুব সামনে বলেই মনে হচ্ছে।

কর্নাটকের পর এবার মধ্যপ্রদেশ বলা হচ্ছে, কারণ বিজেপি-র এক নেতা গতকাল নিজে থেকেই বলেন, মধ্যপ্রদেশে কংগ্রেসের কোন্দল চরমে। এবার যদি কমলনাথের সরকার পড়ে যায়, তাহলে যেন সাংবাদিকরা আমাদের দোষ না দেয়। প্রসঙ্গত, মধ্যপ্রদেশে লোকসভা ভোটে বিপর্যয়ের পর কাঠগড়ায় ওঠেন মুখ্যমন্ত্রী কমলনাথ।

যে রাজ্যে ক মাস আগে শিবরাজ সিং চৌহানকে হারিয়ে ক্ষমতা এসেছিল, সেখানে লোকসভা ভোটে একেবারে শূন্যহাতে ফেরে কংগ্রেস। কমলনাথকে মুখ্যমন্ত্রী পদ থেকে সরিয়ে দেওয়ার দাবি উঠেছে দলের অন্দর থেকেই। এই সুযোগে আসরে নামতে চলেছে বিজেপি। অন্তত এমনটাই খবর।

প্রসঙ্গত, মধ্যপ্রদেশে বিজেপি-র চেয়ে মাত্র পাঁচটা আসন বেশি পেয়ে ক্ষমতায় এসেছে কংগ্রেস। যেখানে গত বছরের শেষের দিকে মধ্যপ্রদেশ বিধানসভায় কংগ্রেস জিতেছিল ১১৪টি আসন, সেখানে বিজেপি পায় ১০৯টি আসন। কর্নাটকে ৯টি আসনের ব্যবধান মুছে ফেলতে পেরেছে বিজেপি, সেখানে মধ্যপ্রদেশে পাঁচের ব্যবধান।