ভুয়ো সংঘর্ষে ১৪ জন নিরপরাধকে হত্যার অভিযোগ, CBI-র জয়েন্ট ডিরেক্টরের বিরুদ্ধে PMO-তে চিঠি অধস্তনের
সিবিআই (Photo Credit: PTI)

নতুন দিল্লি, ২৭ সেপ্টেম্বর: ফের কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা সিবিআই-র (CBI) অন্দরে কোন্দল। গতবছর দুই শীর্ষ আধিকারিক অলোক কুমার ভর্মা এবং রাকেশ আস্থানার সংঘাতের সাক্ষী থেকেছে দেশ। সেই ঘটনার রেশ কাটতে না কাটতেই ফের কেন্দ্রীয় তদন্ত সংস্থার এক শীর্ষ আধিকারিকে বিরুদ্ধে ভুয়ো সংঘর্ষে নিরপরাধ ১৪ জনকে হত্যার (fake encounte) অভিযোগ এনে প্রধানমন্ত্রীর দফতরে ( Prime Minister's Office) চিঠি আরেক আধিকারিকের। যার বিরুদ্ধে অভিযোগ তিনি হলেন সিবিআই-র জয়েন্ট ডিরেক্টর (প্রশাসন) এ কে ভাটনগর (AK Bhatnagar)। অভিযোগকারী সংস্থারই ডেপুটি পুলিশ সুপার এন পি মিশ্র (NP Mishra)।

ডেপুটি সুপারিনটেন্ডেন্ট এন পি মিশ্রের অভিযোগ, সিবিআই-র জয়েন্ট ডিরেক্টর (প্রশাসন) এ কে ভাটনগর ঝাড়খণ্ডে একটি জাল এনকাউন্টারের ঘটনার সঙ্গে জড়িত। তাই তাঁকে সিবিআই-র যুগ্ম শীর্ষকর্তার পদ থেকে সরানো হোক।" ২৫ সেপ্টেম্বর প্রধানমন্ত্রীর অফিসে লেখা চিঠিতে এন পি মিশ্র লিখেছেন, "জানানো হচ্ছে যে এ কে ভাটনগর, যিনি বর্তমানে সিবিআই-র জয়েন্ট ডিরেক্টর (প্রশাসন) হিসাবে কাজ করছেন, তিনি ঝাড়খণ্ডে (Jharkhand)১৪ জন নিরীহ ব্যক্তির জাল এনকাউন্টারে জড়িত। আরও জানানো হচ্ছে যে, এই সম্পর্কিত মামলাটি সিবিআই-র SC-I শাখায় তদন্তাধীন রয়েছে।" প্রধানমন্ত্রীর অফিস ছাড়াও এই চিঠিটি সিবিআই প্রধান এবং চিফ ভিজিল্যান্স কমিশনারকেও (Chief Vigilance Commissioner ) পাঠিয়েছেন এন পি মিশ্র। তাছাড়া ৫ পাতার আলাদা একটি চিঠিও তিনি চিফ ভিজিল্যান্স কমিশনারকে পাঠিয়েছেন। আরও পড়ুন:  Rajeev Kumar: রাজীব কুমারের আগাম জামিন আবেদনের শুনানি ফের সোমবার

এন পি মিশ্রের দাবি, ওই এনকাউন্টারে মৃত পরিবারের সদস্যরা এনিয়ে ইতিমধ্যেই অভিযোগ দায়ের করেছেন। তিনি জানান, সিবিআই-র যুগ্ম অধিকর্তা এ কে ভাটনগরের বিরুদ্ধে বিভিন্ন দুর্নীতিমূলক কাজে জড়িত থাকার অভিযোগ আছে। তাঁর আরও দাবি, এর আগেও বেশ কয়েকজন ভাটনগরের বিরুদ্ধে কর্তৃপক্ষের কাছে অভিযোগ করে। এদিকে সিবিআই-র তরফে এখনও এন পি মিশ্রের এই চিঠি এবং এর বিষয়বস্তু সম্বন্ধে কোনও প্রতিক্রিয়া জানা যায়নি।

তবে এই প্রথমবার নয় যখন এন পি মিশ্র কেন্দ্রীয় তদন্ত সংস্থার কোনও শীর্ষ আধিকারিকের বিরুদ্ধে অভিযোগ তুললেন। এর আগে গত বছর তিনি এক আধিকারিকের বিরুদ্ধে ছত্তিশগড়ে সাংবাদিক উমেশ রাজপুত হত্যা মামলায় দুর্নীতি ও তথ্য-প্রমাণে কারসাজি করার অভিযোগ তোলেন। যদিও সিবিআই তাঁর করা সমস্ত অভিযোগই তখন অস্বীকার করে। এদিকে এন পি মিশ্র নিজের বদলি সংক্রান্ত নির্দেশের বিরুদ্ধে দিল্লি হাইকোর্টে চ্যালেঞ্জ করেছেন। যার শুনানি হবে ১ অক্টোবর। গত বছর, শীর্ষ তদন্তকারী সংস্থার দুই ব্যক্তির মধ্যে কোন্দল প্রকাশ্যে চলে আসে। যার রেশ গড়ায় আদালত পর্যন্ত। সিবিআই-র ডিরেক্টর অলোক ভর্মা এবং স্পেশাল ডিরেক্টর রাকেশ আস্থানা একে অপরের বিরুদ্ধে দুর্নীতিতে জড়িত থাকার অভিযোগ করেছিলেন।